চিংড়িঘাটায় বেসরকারি বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে দুই কলেজপড়ুয়া ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনার পরেই বদলি করে দেওয়া হল বেলেঘাটা ট্র্যাফিক গার্ডের ওসি পঙ্কজ ঘটককে।

তবে, লালবাজারের ট্র্যাফিক কর্তাদের একাংশের দাবি, ওই দুর্ঘটনার সঙ্গে ওসি-কে বদলি করানোর কোনও সম্পর্ক নেই। এটি রুটিন বদলি।

শনিবার সকালে ওই দুর্ঘটনার জেরে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় চিংড়িঘাটা মোড়। সকাল ১১টা থেকে বেলা ৩টে পর্যন্ত দফায় দফায় বাইপাস অবরোধ করে উত্তেজিত জনতা। পুলিশকে ইট-পাথরও ছোড়া হয়। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় একটি সরকারি ও একটি বেসরকারি বাসে। ভাঙচুর করা হয় একাধিক গাড়ি।

পুলিশ সূত্রের খবর, বেলা ১১টা নাগাদ দুর্ঘটনা ঘটলেও লালবাজারের ট্র্যাফিক কন্ট্রোল রুমে সেই খবর যায় বেলা সাড়ে ১১টায়। মৃতদেহ তুলতে দেরি হওয়ায় বেলেঘাটা ট্র্যাফিক গার্ডের উপর ক্ষোভ উগরে দেন অবরোধকারীদের একাংশ।

পুলিশ জানায়, দুর্ঘটনায় বিশ্বজিৎ ভুঁইয়া ও সঞ্জয় বনু নামে স্থানীয় দুই কলেজপড়ুয়া মারা যান। বন্ধুর দাদার বিয়ে উপলক্ষে সাইকেলে চেপে এলাকারই একটি দোকান থেকে মিষ্টি আনতে গিয়েছিলেন তাঁরা। ওই সময় চিংড়িঘাটা মোড়ে উত্তর থেকে দক্ষিণমুখী ট্র্যাফিক খোলা ছিল। মুচিপাড়া-করুণাময়ী রুটের একটি বেসরকারি বাস ওই মোড় থেকে বাঁ দিকে ঘুরে নিউটাউনের দিকে যাচ্ছিল। বাসের বাঁ দিকে থাকা সাইকেল আরোহী দুই যুবককে দেখতে পাননি বাসের চালক। সিগন্যাল খোলা থাকায় তিনিও বাঁ দিকে বাস ঘোরান। তার ফলেই ওই দুই যুবক রাস্তা পার হওয়ার সময়ে বাসের চাকার তলায় ঢুকে যান।