শহরের পথ কুকুরদের নির্বীজকরণের কাজ এখন করে কলকাতা পুরসভা। গত পাঁচ বছর ধরে এই দায়িত্ব রয়েছে তাদের উপরে। এই কাজের জন্য ধাপার কাছে পুরসভার একটি ডগ পাউন্ড (যেখানে কুকুরকে রেখে অস্ত্রোপচার করা হয়) রয়েছে। এখন পুর কর্তৃপক্ষ চাইছেন, একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে যৌথ ভাবে পথ কুকুরদের নির্বীজকরণের কাজ করতে। বিষয়টি নিয়ে সোমবার পুরভবনে মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মেনকা গাঁধী। পুরসভা সূত্রের খবর, বাইপাসের ধারে মুকুন্দপুরে পশু শুশ্রূষার একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে তাঁর। সেখানে রাস্তার হাল এবং নিকাশি ব্যবস্থা খুবই খারাপ। তা সংস্কারের জন্য আবেদন জানান মন্ত্রী। বৈঠকে ছিলেন মেয়র পারিষদ (স্বাস্থ্য) অতীন ঘোষ এবং রাজ্য পশুকল্যাণ পর্ষদের সহ-সভাপতি, বিধায়ক দেবশ্রী রায়।

মেয়র জানান, ধাপার কাছে পুরসভার ডগ পাউন্ডটি খুব বড় নয়। অন্য দিকে, মেনকা গাঁধীর সংস্থাটি প্রায় সাড়ে চার একর জায়গা জুড়ে। সে কারণেই ভবিষ্যতে ধাপার বদলে ওই সংস্থায় যাতে পথ কুকুরদের নির্বীজকরণ করা যায়, তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। এর জন্য ওই এলাকার রাস্তা ও নিকাশি উন্নয়নের কাজ করে দেবে পুর প্রশাসন।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের আগে পথ কুকুরদের নির্বীজকরণের দায়িত্ব ছিল স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতেই। কিন্তু ২০১২ সালে সেই দায়িত্ব নিজেদের হাতে তুলে নেন পুর কর্তৃপক্ষ। কারণ, ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কাজ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল পশু কল্যাণ পর্ষদ। তা হলে এখন আবার স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাতেই সেই দায়িত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্ত কেন? পুর স্বাস্থ্য দফতরের বক্তব্য, মেনকা গাঁধী জানিয়েছেন, তাঁর ওই সংস্থায় পশু চিকিৎসার জন্য পুর কর্তৃপক্ষকে কোনও ব্যয় বহন করতে হবে না। চিকিৎসালয়ের পরিকাঠামো এবং চিকিৎসকের খরচও বহন করবেন তাঁরা। সব দিক ভেবেই পুরবোর্ড ওই সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে।