দামি গাড়িতে নীল বাতি লাগানো, সামনে শাসক দলের দলীয় পতাকা। উইন্ডস্ক্রিনে সাঁটা বোর্ডে লেখা ‘মাইনরিটি মোর্চা, ওয়েস্ট বেঙ্গল, ভাইস প্রেসিডেন্ট’। বর্ষবরণের রাতে এমনই একটি গাড়ি নিয়ে ঘুরছিলেন এক যুবক। অভিযোগ, নিজেকে সরকারি আধিকারিক হিসেবে দাবি করে বচসায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। থামাতে গেলে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীকে ধমকও দেন। এর পরেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, ধৃতের নাম আসিফ ইকবাল আহমেদ। বাড়ি ম্যাকলয়েড রোডে।

পুলিশ সূত্রের খবর, রবিবার রাত দেড়টা নাগাদ ৪০ শেক্সপিয়র সরণির একটি নাইট ক্লাবের সামনে মত্ত অবস্থায় একদল যুবকের মধ্যে গোলমাল বাধে। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কয়েক জন যুবককে ‘চমকাচ্ছেন’ এক ব্যক্তি। তিনি নিজেকে ‘উচ্চপদস্থ  সরকারি আধিকারিক’ বলে পরিচয় দিয়ে ওই যুবকদের ‘দেখে নেওয়ার’ হুমকিও দিতে থাকেন। এক সময়ে আসিফ নামের ওই ব্যক্তি দুই যুবককে মারধরও করেন বলে অভিযোগ। সে সব দেখে এগিয়ে যান পুলিশকর্মীরা।

অভিযোগ, পুলিশকে দেখে ওই ব্যক্তির দাপট আরও বাড়ে। তিনি পুলিশকেও পাল্টা ধমক দিতে শুরু করেন এবং নিজেকে সরকারি আধিকারিক হিসেবে পরিচয় দেন। প্রাথমিক ভাবে পুলিশের কোনও রকম সন্দেহ না হলেও, একটু পরেই এক পুলিশকর্মী বুঝতে পারেন ওই ব্যক্তি ভুয়ো পরিচয় দিচ্ছেন। কারণ, এর আগে ওই যুবক নিজেকে বিজেপি-র এক নেতার ভাইপো বলে পরিচয় দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। সেই সময়েও তিনি নীল বাতি লাগানো গাড়ি নিয়েই ঘুরছিলেন। এর পরেই নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। 

পুলিশ জানিয়েছে, ম্যাকলয়েড রোডের বাসিন্দা ওই যুবকের বয়স ২৯ বছর। তপসিয়া সেকেন্ড লেনে তাঁর একটি ওষুধের দোকান রয়েছে। কিন্তু গা়ড়িটি কার এবং কেনই বা তাতে নীল বাতি ও শাসক দলের পতাকা লাগানো ছিল, তার তদন্ত করেছে পুলিশ। আসিফের নামে ভারতীয় দণ্ডবিধি (১৭১ এবং ১৮৮ নম্বর ধারা) অনুযায়ী সরকারি জনপ্রতিনিধির চিহ্ন অর্থাৎ, বেআইনি ভাবে নীল বাতি লাগানো গাড়ি নিয়ে ঘোরাফেরা এবং সরকারি নির্দেশ অমান্য করার অভিযোগ আনা হয়েছে। 

পুলিশ জানিয়েছে, গাড়ির নম্বর প্লেট ধরে মালিকের খোঁজ চলছে। তবে পুলিশের দাবি, আসিফকে ওই একই মডেলের গাড়িতে নীল বাতি লাগানো অবস্থায় শেক্সপিয়র সরণি এবং পার্ক স্ট্রিট সংলগ্ন এলাকায় একাধিক বার দেখা গিয়েছে। কিন্তু তখন কোনও রকম অভিযোগ না মেলায় তাঁকে গ্রেফতার করা যায়নি।