বারো বছরের কিশোরীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অপরাধে সৌরভ খান নামে এক যুবকের দশ বছর সশ্রম কারাবাসের নির্দেশ হল। বুধবার শিয়ালদহের বিশেষ পকসো আদালতের বিচারক জীমূতবাহন বিশ্বাস ওই সাজা ঘোষণা করেন। তাঁর আরও নির্দেশ, মেয়েটিকে চার লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। প্রসঙ্গত, ঘটনার মাত্র ৯ মাসের মাথায় সাজা ঘোষণা হল অভিযুক্তের।

সরকারি কৌঁসুলি নিবাসরঞ্জন দত্তচৌধুরী জানান, গত বছরের ৩ মে ওই কিশোরী দক্ষিণেশ্বরে গিয়েছিল। সেখান থেকে তাকে অপহরণ করে সৌরভ। মেয়ের খোঁজ না পেয়ে পরিজনেরা কাশীপুর থানায় অপহরণের অভিযোগ করেন।
জানা যায়, কিশোরীকে অপহরণ করে সৌরভ হাওড়ার জয়পুরে তার কাকার বাড়িতে নিয়ে গিয়েছে। এর কয়েক দিন পরেই তদন্তকারী অফিসার সিদ্ধার্থ রানার নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল জয়পুর থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করে।

ধৃত সৌরভের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৬৬এ ধারায় ধর্ষণের মতলবে অপহরণের অভিযোগ আনা হয়েছিল। সেই সঙ্গে পকসো আইনের ৬ নম্বর ধারায় ধর্ষণের অভিযোগও আনা হয়। সরকারি কৌঁসুলি জানান, মেয়েটির শারীরিক পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ মেলে। ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তার গোপন জবানবন্দি নথিভুক্ত করা হয়। ওই বছরের অগস্টে হয় চার্জ গঠন। পকসো আদালতের বিশেষ সরকারি আইনজীবী বিবেক শর্মা জানিয়েছেন, দু’টি মামলাতেই সাজা হয়েছে ধর্ষণকারীর।