দুষ্কৃতীদের হাত থেকে স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে মহিলাকে খুনের ঘটনায় রাজনীতির রং লেগেছে। ওই ঘটনায় পুলিশ অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা রুজু করেছে। তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রাক্তন মন্ত্রী কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়। এই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

মঙ্গলবার কান্তিবাবু নিহতের বাড়িতে যান। সিপিএম দল থেকে আরতি গুড়ে নামে ওই মহিলার শবদাহের জন্য ৫০০০ টাকা দেওয়া হয়। কান্তিবাবু গ্রামবাসীদের বলেন, ‘‘খুনের ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি। আপনারা জোটবদ্ধ হয়ে থানায় গিয়ে বিক্ষোভ দেখান।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘কেন অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা রুজু করল পুলিশ? কেন খুনের মামলা রুজু করা হল না? এর উত্তর পুলিশকে দিতে হবে।’’ এ দিন আরতিদেবীর মেয়ে শকুন্তলা চাঁপাদার বলেন, ‘‘আমরাও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’’.

পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার মথুরাপুরের বড়সুদি গ্রামে আরতিদেবীর স্বামী গৌরাঙ্গবাবুকে গ্রামের কয়েকজন যুবক কটূক্তি করে। পাল্টা তাদের বকাঝকা করে বাড়ি ফেরেন বছর ষাটের ওই বৃদ্ধ। এরপরেই গ্রামের কয়েকজন যুবক ওই দম্পতির বাড়িতে চড়াও হয়। গৌরাঙ্গবাবুকে মারধর করে বলে অভিযোগ। আরতিদেবী বাধা দিতে গেলে এক যুবক আচমকা তাঁর পেটে ঘুষি মারে। সোমবার হাসপাতালে মৃত্যু হয় আরতিদেবীর। অভিযুক্তেরা তৃণমূল সমর্থক বলে দাবি গৌরাঙ্গবাবুর। মঙ্গলবার কান্তিবাবু বলেন, ‘‘পুলিশ গ্রেফতার না করতে পারলে আমরা আন্দোলনে নামব।’’