নোট বাতিল এবং রোজভ্যালি কাণ্ডে তৃণমূলের সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের গ্রেফতারের প্রতিবাদে ক্যানিঙের মহকুমাশাসকের দফতরের সামনে তিন দিনের অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করল তৃণমূল। সোমবার সকাল ১০টা থেকে কর্মসূচি শুরু হয়।

এ দিন মহকুমাশাসকের দফতরের সামনে তাঁবু খাটান শাসক দলের নেতা-কর্মীরা। ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতি তথা ক্যানিং পূর্বের বিধায়ক সওকত মোল্লা, ক্যানিং পশ্চিমের বিধায়ক শ্যামল মণ্ডল, জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি শৈবাল লাহিড়ি, ক্যানিং ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি পরেশরাম দাস- সহ প্রমুখ।

মহকুমাশাসক প্রদীপ আচার্য বলেন, ‘‘এটি ওঁদের রাজনৈতিক কর্মসূচি। নিয়ম মেনেই ওঁরা তা করছেন। কোনও দাবি আমাকে জানালে সংশ্লিষ্ট দফতরে জানিয়ে দেবো।’’

সওকত বলেন, ‘‘দেশের প্রধানমন্ত্রী কালো টাকা উদ্ধারের নামে গরিব মানুষকে অর্থনৈতিক সঙ্কটের মুখে ঠেলে দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী এর প্রতিবাদ করাতেই আমাদের দলীয় সাংসদদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। এর প্রতিবাদেই অবস্থান-বিক্ষোভ কর্মসূচি।’’ কিন্তু রাজ্য সরকারের দফতরের সামনে বিক্ষোভের কারণ কী? সওকতের সাফাই, ‘‘প্রতিটি মহকুমাশাসকের দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখানো হবে। তা হলেই কেন্দ্রের কাছে বার্তা পৌঁছবে। সে কারণেই এই সিদ্ধান্ত।’’