প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কারিগরি শিক্ষা দফতর। কিন্তু তা আর পালন হয়নি। ফলে ভুগছেন ছাত্রছাত্রীরা। ঘাটাল পলিটেকনিক কলেজ নিয়ে এখন এমনই পরিস্থিতি।

গত শিক্ষাবর্ষ থেকেই ঘাটাল পলিটেকনিক কলেজের পাঠক্রম শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ঘাটাল গভর্নমেন্ট পলিটেকনিক কলেজের পড়ুয়ারা কোলাঘাট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ক্লাসও করছেন। কিন্তু দ্বিতীয় সেমেস্টার থেকেই ঘাটালেই ক্লাস করা যাবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কারিগরি শিক্ষা দফতর। কিন্তু বছর পার হলেও এখনও ঘাটাল কলেজের উদ্বোধনই হয়নি। অথচ ফের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। ফলে সমস্যায় পড়েছেন পড়ুয়ারা। তাঁরা বিঝতে পারছেন না কোথায় তাঁরা ক্লাস করবেন, কোলাঘাটে না ঘাটালে! যদিও দফতরের মন্ত্রী অসীমা পাত্রের বক্তব্য, “বিল্ডিং সহ নানা সমস্যায় এতদিন ঘাটাল পলিটেকনিক কলেজের ছাত্রদের কোলাঘাটে ক্লাস করতে হচ্ছিল। এখন ঘাটাল কলেজটি পুরোপরি তৈরি। এবার সেখানেই ক্লাস হবে।” ঘাটালের বিধায়ক শঙ্কর দলুই বলেন, “আমি মন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি। যাতে জুলাই মাস থেকেই কলেজ চালু হয়।”

প্রশাসন সূত্রে খবর, বছর চারেক আগে কারিগরি শিক্ষা দফতর ঘাটাল গভর্নমেন্ট পলিটেকনিক কলেজের অনুমোদন ও টাকা বরাদ্দ করে। শহরের কোন্নগরে পাঁচ একর জমিতে আট কোটি টাকা ব্যয়ে কলেজের তিনতলা ভবনের কাজ শেষ। রাস্তা, পানীয় জল ও বিদ্যুতের কাজও সম্পূর্ণ। কিন্তু এখনও ক্লাসের জন্য প্রথম বর্ষের ছাত্রদের কোলাঘাটেই ছুটতে হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রের কথায়, ‘‘দ্বিতীয় সেমেস্টার কবেই শেষ হয়ে গিয়েছে। এবার তৃতীয় সেমেস্টার শুরু হবে। অথচ এখনও নিজেদের কলেজে ক্লাস শুরুই হল না।” আর এক ছাত্রের মুখে শোনা গেল, ‘‘বিল্ডিংয়ের কাজ শেষ হলেও ঘাটাল কলেজে এখনও ল্যাবরেটরি এবং প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসের কোনও যন্ত্রপাতিই আসেনি।’’ একই সুরে দফতরের এক পদস্থ আধিকারিক বলেন, “পুরো পরিকাঠামো এখনও তৈরি হয়নি। তবে শিক্ষক নিয়োগ এবং যন্ত্রপাতি কেনার প্রস্তুতি চলছে।”