সুন্দরপুরের ঘটনায় ফের দু’জনকে গ্রেফতার করল ঘাটাল পুলিশ। এনিয়ে ওই ঘটনায় মোট পাঁচজন গ্রেফতার হল। সোমবার ধৃত কাজি মইদুল এবং কাজি মুজিবরকে ঘাটাল আদালতে তোলা হয়। বিচারক ধৃতদের দু’দিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। মূল অভিযুক্ত কাজি ইসমাইল অবশ্য এখনও অধরা। জেলা পুলিশের এক পদস্থ আধিকারিক জানান, ইসমাইল ছাড়াও কালো ওরফে শেখ সইদ নামে আর এক দুষ্কৃতীর নাম পাওয়া গিয়েছে। দু’জনের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

পুলিশ সূত্রের খবর, সুন্দরপুর কাণ্ডে গত বৃহস্পতিবারই অভিযুক্তের মা -বোন এবং এক আত্মীয় শেখ ফরিদউদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। ধৃতরা এখন পুলিশি হেফাজতে। তাদের জেরা করে পুলিশ নিশ্চিত, এই ঘটনায় কাজি মইদুল এবং কাজি মুজিবরও জড়িত। দু’জনই কাজি হাসেম আলির পড়শি এবং সম্পর্কে আত্মীয়ও। পুলিশ জানিয়েছে,মইদুলের কাজিরহাট বাজারে একটি ভুষিমালের দোকান রয়েছে। সম্প্রতি দোকানে পেট্রল বিক্রিও শুরু করেছিল সে। ইসমাইলকে মইদুলই পেট্রল সরবরাহ করেছিল এবং ঘাটাল থেকে নতুন দু’টি তালা কিনে এনেছিল মইদুল এবং মুজিবর। ধৃতদের জেরা করে পুলিশ নিশ্চিত, পারিবারিক বিবাদ ছাড়া অন্য কারণও রয়েছে। দ্বিতীয় কারণটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।