মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে ৮৫ বছরের মায়ের নাক ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল ছেলে ও বৌমার বিরুদ্ধে৷ চেলা কাঠের বেপরোয়া আঘাতের ক্ষত রয়েছে বৃদ্ধার শরীরের আরও অনেক জায়গাতেও। এই ঘটনায় ধূপগুড়ির সাকোয়াঝোরার পূর্ব মল্লিকপাড়ায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে সরব হয়েছেন এলাকাবাসী৷

বৃদ্ধার নাম ভানুমতী দাস৷ স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, তাঁর চার ছেলে রয়েছেন৷ কিন্তু কেউই তাঁদের মা-কে দেখেন না৷ পূর্ব মল্লিকপাড়ায় বৃদ্ধার বাবার বাড়ির লোকেরা তাঁর জন্য এক বিঘা জমি কিনে দিয়েছিলেন৷ যেখানে একটি ঘর করে থাকেন। বাকি জমিতে লোক দিয়ে চাষ করিয়ে তাঁর আয় হয়৷ বৃদ্ধার ওই জমি সংলগ্ন এলাকাতেই তার ছোট ছেলে রঞ্জন দাস থাকে৷ রঞ্জন ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধেই বৃদ্ধাকে মেরে নাক ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷

বৃদ্ধা বলেন, ‘‘আমার ছোট ছেলে ও বৌমা শনিবারও প্রচণ্ড মেরেছিল৷ আজ আবার মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে মারল৷’’ অভিযুক্ত রঞ্জনের সঙ্গে যোগাযোগ করা না গেলেও তাঁর মেয়ে পাল্টা অভিযোগ করেন, ‘‘বাবা গিয়ে ঠাকুমার কাছে মোবাইল ফোনটি চায়৷ এর বেশি কিছু হয়নি৷’’ পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।