যতকাণ্ড টয়ট্রেনে! দিনভর তার সাক্ষী থাকল সেই সাহেব পর্যটকদের দল।

ইংল্যান্ড থেকে আসা এই দলের টয়ট্রেন সফরের শুরুতেই ঘটেছিল বিপত্তি। গত শুক্রবার শিলিগুড়ি পৌঁছেই স্টিম ইঞ্জিনে টানা চার্টাড টয়ট্রেনে শিলিগুড়ি থেকে রংটং যেতে যেতে নৈশভোজ সারার কথা ছিল দলটির। সে দিন নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে ছাড়ার আগেই স্টিম ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকেল— পরপর বিভ্রাটের সাক্ষী থাকলেন দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ের স্টিম ইঞ্জিন নিয়ে ফটোফিচার করতে আসা পর্যটকেরা।

এ দিন সকালে বিপত্তি শুরু শিলিগুড়ি লাগোয়া দাগাপুরে। শিলিগুড়ি জংশন থেকে দিব্যি কু ঝিকঝিক শব্দে এগোচ্ছিল টয়ট্রেন। হঠাৎই ব্রেকের হ্যাচকা টানে ঝাকুনি দিয়ে থেমে যায় ট্রেন। লাইনের ওপর আড়াআড়ি দাঁড়িয়ে পণ্যবাহী বড় ট্রাক। মিনিট খানেক ধরে হুইসেল বাজালেন ইঞ্জিন চালক। তবু ট্রাকের নড়ন চড়ন নেই। টয়ট্রেনের গার্ড নেমে এগিয়ে দেখলেন ট্রাকের ভেতরে চালক-খালাসি কাউকেই দেখা যাচ্ছে না। যাত্রীরাও নেমে পড়েছেন। তাঁরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন লাইন আটকে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকের ছবি তুলতে। ঘণ্টাখানেক বহু খোঁজার নিজেই উদয় হলেন ট্রাক চালক। ট্রাক সরতে ফের পাহাড়ের পথে এগোলো টয়ট্রেন।

বিকেলে কার্শিয়াং থেকে ফেরার পথে তিনধরিয়ার কাছে ইঞ্জিনের চাকা পড়ে যায় লাইন থেকে। গত ২ ফেব্রুয়ারি এনজেপিতে লাইনচ্যূত হওয়ার পরে বিদেশি দলটির চার্টাড ট্রেনের ইঞ্জিন বদলে দিয়েছিল রেল। মাউন্টেনিয়ার নামে ম্যাঞ্চেস্টারে তৈরি শতবর্ষ পুরোনো একটি ইঞ্জিন দেওয়া হয়। রেলের অবশ্য দাবি, লাইনের পাশে মাটি নরম হয়ে যাওয়াতেই ঘটনাটি ঘটেছে। কেউ অবশ্য জখম হননি। কামরাগুলির চাকা লাইনের ওপরেই ছিল। তবে এর পরে আর ঝুঁকি নিতে চাননি ব্যবস্থাপকরা। সঙ্গে থাকা বাসে চাপিয়ে সকলকে নামিয়ে আনা হয়েছে।

বৃহস্পতিবারই ছিল সফরের শেষ দিন। তবে এত বাধার পরেও দমেননি কেউ। এক পর্যটক, পিটার জর্ডন বললেন, ‘‘এটাই তো মজা!’’