বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন ছাত্রী। সেই আক্রোশে ছাত্রীকে লক্ষ করে অ্যাসিড ছুড়ে মুখ, হাত পুড়িয়ে দিয়েছিল যুবক।  ২০১১ সালের নভেম্বরে সিউড়ি থানা এলাকার ওই ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক শেখ আনোয়ারকে তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল সিউড়ি আদালত। মঙ্গলবার সিউড়ির বিচারবিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট (১) অলিভা রায় এই সাজা শোনান।

    সরকার পক্ষের কৌঁসুলি বিকাশ পৈতণ্ডী জানান, শুধু কারদণ্ড নয়। অভিযুক্তের ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন বিচারক। তার ৫০ শতাংশ নির্যাতিতা পাবেন। রাজ্য সরকারের নির্দিষ্ট তহবিল থেকে তিন লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশও দিয়েছেন বিচারক। কৌঁসুলি জানান, সিউড়িতে বাড়ি তরুণীর। ঘটনার সময় তিনি ছাত্রী ছিলেন। স্থানীয় বেসরকারি একটি স্কুলে কিছু দিনের জন্য শিক্ষিকা হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। সেখানেই শিক্ষকতা করতেন পাশের জুনিদপুর গ্রামের যুবক শেখ আনোয়ার। ছাত্রীর অভিযোগ ছিল, ওই স্কুলে পড়াতে যাওয়ার সময় থেকে একাধিক বার ওই যুবক তাঁকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কিন্তু, তিনি রাজি হননি। ২০১১ সালের ২৭ নভেম্বর সাইকেলে যখন গ্রামের দিকে যাচ্ছিলেন, মোটরবাইকে এসে ছাত্রীর উপর অ্যাসিড ছুঁড়ে মারেন আনোয়ার। মারাত্মক জখম হন ছাত্রী। অ্যাসিডে পুড়ে মুখ ও হাত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রথমে সাঁইথিয়া ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যেকেন্দ্রে, পরে দীর্ঘ দিন কলকাতায় চিকিৎসা চলে। বর্তমানে সুস্থ হলেও ক্ষতগ্রস্ত হয়েছে তাঁর জীবন। বিকাশবাবু জানান, সমস্ত তথ্যপ্রমাণ ও সাক্ষ্যের উপর ভিত্তি করে বিচারক অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করেন।