স্টেশনের কল থেকে জল না পড়লে, পাখা না ঘুরলেও এ বার থেকে জানাতে হবে রেল বোর্ডকে। যাত্রী সংক্রান্ত যে কোনও খুঁটিনাটি সমস্যার তথ্য দ্রুত জানতে চেয়ে নির্দেশ পাঠিয়েছে রেল বোর্ড। যাত্রী পরিষেবায় যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তার জন্যই এই পদক্ষেপ বলে রেলবোর্ড জানিয়েছে। পটনায় ট্রেন ডাকাতি এবং মোরাদাবাদে রেল দুর্ঘটনা— এই দুই ‘অভিজ্ঞতা’ থেকেই এমন পদক্ষেপ বলে নির্দেশিকাতেই উল্লেখ রয়েছে।

রেল বোর্ডের দাবি, পটনা রাজধানী এক্সপ্রেসে ডাকাতির কয়েক ঘণ্টা পরেও সরকারি ভাবে কিছুই জানানো হয়নি।

বাংলা নববর্ষের দিন মোরাদাবাদে রাজ্যরানী এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হওয়ার খবর বা সেই সংক্রান্ত কোনও তথ্যই জানতে পারেনি রেল বোর্ডের কর্মাশিয়াল কন্ট্রোল। এই দুই ঘটনায় উদ্বিগ্ন রেল বোর্ড। যাত্রীদের স্বাচ্ছন্দ্যের দেখভাল করে রেল বোর্ডের কর্মাশিয়াল কন্ট্রোল তথা বাণিজ্যিক নিয়ন্ত্রক বিভাগ। যাত্রী সুবিধায় জরুরি কী পদক্ষেপ করতে হবে, তা-ও নির্ধারণ করে এই বিভাগ। পটনা এবং মোরাদাবাদের ঘটনায় যাত্রীদের দীর্ঘক্ষণ দুর্ভোগ পোহাতে হয়। একে গাফিলতি হিসেবেই দেখছে রেল বোর্ড।

রেল বোর্ডের কমার্শিয়াল কন্ট্রোলের এক উপ-অধিকর্তা পদমর্যাদার আধিকারিক নির্দেশিকাটি (ডিও নম্বর: ২০১৭/টিজি.ভি/১/২) পাঠিয়েছেন। গত ১৭ এপ্রিল সই করা ওই চিঠিতে রেল বোর্ড জানিয়েছে, পটনা ও মোরাদাবাদের দুই ঘটনাই তারা জেনেছে রেলমন্ত্রীর দফতরের মাধ্যমে। তত ক্ষণে পুরো দিন পার হয়ে গিয়েছে।

রেলের সব জোন ও বিভাগের সদর দফতরেই এই নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। তাতে আরও বলা হয়েছে, সব ঘটনার কথাই রেল বোর্ডকে জানাতে হবে। এনজেপি স্টেশনেও নির্দেশিকা এসেছে।

উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের এক আধিকারিকের দাবি, প্ল্যাটফর্মে কোনও পানীয় জলের কল খারাপ থাকলে অথবা পাখা না চললেও এ বার থেকে রেল বোর্ডকে বিস্তারিত তথ্য জানাতে হবে। ট্রেনের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা নিয়ে অভিযোগ থাকলেও তা তাদের দ্রুত জানাতে বলা হয়েছে।