এক সঙ্গে ছ’সাত জন মিলে জোর করে ওয়ার্ডে ঢুকতে গেলে নিরাপত্তা রক্ষী বাধা দেওয়ায় তাঁকে মারধরের অভিযোগ উঠল। এর প্রতিবাদে নিরাপত্তা কর্মীরা অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি তোলেন। রবিবার বিকেলে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ঘটনা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, মেডিসিন বিভাগে ভর্তি এক রোগিণীকে দেখতে এসেছিলেন পরিজনেরা। তাঁরা ওয়ার্ডে ঢুকতে গেলে নিরাপত্তা রক্ষী জানান কার্ড নিয়ে এক জনকে ঢুকতে দেওয়া হবে। তা নিয়ে বচসা বাঁধে। তাঁরা জোর করে ঢুকতে গেলে নিরাপত্তারক্ষী বাধা দেন। তখনই তাঁকে ধাক্কা দেওয়া হয়, মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। তিনি পড়ে গিয়ে মাথায় চোট পান। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামলায়।

জখম নিরাপত্তারক্ষী রঞ্জন রায়কে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। তাঁর সিটিস্ক্যান করানোর পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসক। হাসপাতালের তরফে পুলিশে অভিযোগ করা হয়েছে।

নিরাপত্তা কর্মীরা জানান, রোগীর লোকেদের হামলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে তাঁরা কাজ করবেন না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন তাঁদের।

হাসপাতালের সুপার মৈত্রেয়ী কর বলেন, ‘‘ওয়ার্ডে যাতে ইচ্ছে মতো লোক না ঢোকে সে জন্যই কার্ডের ব্যবস্থা। সেই নিয়ম মেনে চলার কারণে নিরাপত্তারক্ষীর উপর হামলার ঘটনা দুর্ভাগ্যজনক। পুলিশকে জানানো হয়েছে।’’

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, এ ধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে বলা হয়েছে। পুলিশি টহলও দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে। হাসপাতালের নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে শীঘ্রই বৈঠক করে নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করার আশ্বাস দিয়েছেন হাসপাতাল সুপার।

যে নিরাপত্তারক্ষী জখম হয়েছেন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেই তাঁর চিকিৎসা করা হচ্ছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। পুলিশের তরফে জানানো হয়, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।