গভীর নিম্নচাপে টানা বৃষ্টি চলছে দক্ষিণে। কলকাতা-সহ লাগোয়া জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস আছে। যদিও উত্তরবঙ্গে এখনই ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর।

কলকাতার উপর গভীর নিম্নচাপের টানে উত্তরের আকাশ থেকে জলভরা মেঘ আপাতত দক্ষিণে পাড়ি দিয়েছে। তবে বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। বৃষ্টি না হলেও এ দিন বেশ কিছু শহরে আকাশ ছিল মেঘলা। তাতে কয়েকদিনের চড়া রোদ থেকে কিছুটা অন্তত রেহাই মিলেছে।

কয়েকদিন ধরেই অস্বস্তিকর গরমে নাজেহাল পড়ে পড়েছিলেন মালদহবাসী। এ দিন ছিল মেঘলা আকাশ। ভোরের দিকে ঠান্ডা বাতাস বইতে শুরু করে। যদিও এমন আবহাওয়ায় ঠান্ডা-গরম থেকে জ্বরের সম্ভাবনা বলে দাবি চিকিৎসকদের। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বেশিরভাগ সময় উত্তর দিনাজপুরে বেলার দিকে রায়গঞ্জ, কালিয়াগঞ্জ, হেমতাবাদ, ইটাহার ও কালিয়াগঞ্জে হাল্কা বৃষ্টি হয়। হালকা বৃষ্টি হয়েছে কোচবিহারেও। তবে বেলা বাড়তেই রোদের দেখা মেলে। আবহাওয়াও ছিল পুরো ঝলমলে। তবে গরমের গুমোট ভাব অন্য দিনের তুলনায় কিছুটা কম ছিল। উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রামীণ কৃষি মৌসম সেবা কেন্দ্র সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার ১১ অক্টোবর পর্যন্ত কোচবিহার জেলায় হাল্কা বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। শিলিগুড়ি-জলপাইগুড়িতে অবশ্য রোদের তেজ ছিল বেশি। তাপমাত্রাও ছিল স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রি বেশি।

দক্ষিণ দিনাজপুর, ইসলামপুরেও বৃষ্টি হয়েছে সামান্যই। উত্তরবঙ্গের পাহাড়ি এলাকায় বৃষ্টি হয়নি। দার্জিলিং, কালিম্পং‌, কার্শিয়াং ছিল কুয়াশা ঢাকা। সিকিমের তাপমাত্রা ছিল স্বাভাবিকের থেকে অনেকটাই বেশি। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের সিকিমের আধিকারিক গোপীনাথ রাহা বলেন, ‘‘সিকিমে এখন বেশ গরম। তবে দু’তিন পর থেকে আবহাওয়ার পরিবর্তন হতে শুরু করবে। তখন উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টি হতেও পারে।’’