এক ঝাঁক নেতা-মন্ত্রীদের সামনে রেখে পাহাড়ে পুরভোটের প্রার্থী বাছাই করে প্রচারে নেমে পড়েছে তৃণমূল। বৃহস্পতিবার পাহাড়ের চার পুরসভায় তৃণমূলের প্রায় সব প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেছেন। মোর্চা সহ পাহাড়ের একাধিক দলও প্রার্থী তালিকা তৈরি করে ফেলেছে। ইতিমধ্যে মনোনয়নপত্রও দাখিল করেছেন অনেকে।

চলতি ভোটে প্রয়াত সুবাস ঘিসিঙ্গের দল জিএনএলএফের সঙ্গে তৃণমূলের জোট হয়েছে। সে জন্য, দার্জিলিং, কালিম্পং, কার্শিয়াং ও মিরিক, চার পুরসভাতেই বেশ কয়েকটি আসন জিএনএলএফকে ছেড়েছে তৃণমূল। জিএনএলএফের কেন্দ্রীয় কমিটির মুখপাত্র নীরজ জিম্বা তামাঙ্গ বলেন, ‘‘পাহাড়ে তৃণমূল-জিএনএলএফ জোট এবার দুর্দান্ত ফল করবে। পাহাড়ের মানুষ যে পরিবর্তন চাইছেন তা জোটের মাধ্যমেই সম্ভব হবে।’’

দলীয় সূত্রের খবর, মিরিকে মোট ৯টি আসন। সেখানে ৭টি আসনে তৃণমূল প্রার্থী দিয়েছে। ২টি আসন জিএনএলএফকে ছেড়েছে তৃণমূল।  মিরিক পুরসভার নির্বাচন পরিচালনের দায়িত্বে থাকা আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক তথা এসজেডিএ-এর চেয়ারম্যান সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, ‘‘আমাদের প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা করেছেন। মিরিকের মানুষ যে উন্নয়ন চাইছে এই পুরভোটেই তা স্পষ্ট হবে।’’ যারা এদিন তৃণমূলের হয়ে মনোনয়ন দিয়েছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন, প্রাক্তন চেয়ারম্যান লালবাহাদুর রাই এবং প্রাক্তন ভাইস চেয়ারম্যান এমকে জিম্বা। তাঁরা সম্প্রতি মোর্চা ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন।

দার্জিলিং পুরসভায় ৩২টি আসনের মধ্যে ১৮টি আসন নিজেরা রেখেছে তৃণমূল। ১৪টি আসন জিএনএলএফকে ছেড়েছে তৃণমূল। তবে তৃণমূল নিজেদের আসনের মধ্যে ২টি নির্ধলদের ছেড়ে দেবে।