২০১৫। ‘রাজকাহিনী’-তে অন্য স্বাদের গল্প বলেছিলেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়।  নতুন লুকে টলিপর্দায় ধরা দিয়েছিলেন ‘বেগমজান’ ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।  

২০১৭। আগামী ১৪ এপ্রিল ‘বেগমজান’ নিয়ে ফের বক্স অফিসে আসছেন সৃজিত। তবে এ বার হিন্দি ছবি। মুখ্য ভূমিকায় বিদ্যা বালন। কিন্তু প্রথম থেকেই নাকি দু’টি ভাষার ছবির জন্যই সৃজিতের প্রথম পছন্দ ছিলেন বিদ্যা। তা হলে ‘রাজকাহিনী’ তৈরির নেপথ্য গল্পটা কী? কী ভাবেই বা তৈরি হল ‘বেগমজান’? শেয়ার করলেন স্বয়ং পরিচালক।

আরও পড়ুন, ‘হেতাল’-এর খোঁজ পেলেন অরিন্দম

সৃজিতের কথায়, ‘‘বেগমজানের গল্প নিয়ে প্রথমে বাংলা, হিন্দি দুটো ভাষাতে একসঙ্গে শুটিং করার ইচ্ছে ছিল। অবশ্যই আমার প্রথম পছন্দের ছিলেন বিদ্যা। ওঁর কথা ভেবেই ডায়লগে কিছু হিন্দি, উর্দু শব্দও রেখেছিলাম। সে সময় বিদ্যার সঙ্গে কথা বলতে মুম্বইও গিয়েছিলাম। কিন্তু বিদ্যা ব্রেক নিয়েছিলেন। ওঁর ডেট পাইনি। ফলে দুটো ভাষায় একসঙ্গে ছবি করার প্রজেক্টটাই বাতিল হয়ে যায়। তখন ঠিক করি বাংলাতেই ছবিটা করব। সেই প্ল্যানমাফিক ঋতুপর্ণাকে মূল চরিত্রে কাস্ট করেছিলাম। পরে ‘রাজকাহিনী’র সাবটাইটেলের কাজে যখন মুম্বই যাই তখন মহেশ ভট্ট ইন্টারেস্ট দেখিয়েছিলেন হিন্দি ছবিটার জন্য। বিদ্যাও রাজি হন। সেখান থেকেই তৈরি বেগমজান।’’

আরও পড়ুন, বিদ্যা বালন কি সন্তানসম্ভবা?

ঋতুপর্ণার সেই ফেসবুক পোস্ট। ছবি: ফেসবুকের সৌজন্যে।

সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে ‘বেগমজান’-এর ট্রেলর। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবির কলাকুশলীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‘রাজকাহিনী’র বেগমজান ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। তিনি লিখেছেন, ‘‘…বেগমজানের ট্রেলর রাজকাহিনীর কথা মনে করাচ্ছে। অন্যতম কঠিন চরিত্র ছিল আমার। আমার গলাও ভেঙে গিয়েছিল। দুটো ছবির মধ্যে স্টারকাস্ট আর দর্শক ছাড়া আর বোধহয় কোনও পার্থক্য নেই। আমি নিশ্চিত বিদ্যাও ‘বেগমজান’-এর জানটা বের করতে পারবেন।’’