জন্মের পর প্রথম কয়েক মাস তৈমুরকে মিডিয়ার হাত থেকে দূরে রাখতে চেয়েছিলেন তিনি। তিনি অর্থাত্ তৈমুরের বাবা সইফ আলি খান। আর এ রহস্য শেয়ার করেছেন খোদ করিনা কপূর।

গত ডিসেম্বরে তৈমুরের জন্ম দেন করিনা। তার আগে থেকেই প্রেগন্যান্সি নিয়ে চর্চায় ছিলেন নায়িকা। ছেলের জন্মের পর কেন তার নাম তৈমুর রাখা হল, তা নিয়েও দেশ জুড়ে তুমুল বিতর্ক হয়েছিল। তখন তা একা হাতে সামলেছিলেন সইফ। পরে অবশ্য তাঁর মনে হয়েছিল, তৈমুর যেন সাধারণ ভাবেই বড় হয়। সে যে সেলেব দম্পতির সন্তান তা যেন ওর কোথাও মনে না হয়। সে কারণে নিজেই পরে তৈমুরের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন।

আরও পড়ুন, সকালে উঠেই এই গানটা শোনে তৈমুর!

আজ ফাদার্স ডে। সইফের সঙ্গে তৈমুরের ইকুয়েশন কেমন, তা জানতে চাওয়া হলে করিনার উত্তর, ‘‘সেটা তো তৈমুর বড় হলেই বোঝা যাবে।’’

সইফের আরও দুই সন্তান রয়েছে। সারা ও ইব্রাহিম। মা অমৃতা সিংহের সঙ্গে থাকলেও বাবার সঙ্গে তাঁদের সুসম্পর্ক রয়েছে। কী ভাবে সন্তানদের বন্ধু হয়ে উঠতে হয় তা নাকি ভালই জানেন সইফ। বাবা হিসেবে তিনি প্রায় সব দায়িত্বই পালনের চেষ্টা করেন। অন্তত এমনটাই দাবি করিনার।