ওম পুরীর মৃত্যু স্বাভাবিক ভাবে হয়নি— এমনটাই দাবি করেছিল মুম্বই পুলিশ। কারণ, ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে অভিনেতার মৃত্যুর কারণ ‘অজানা’ বলে লেখা হয়েছিল। ওই রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে দুর্ঘটনাজনিত কারণে মৃত্যুর একটি মামলা দায়ের করে তদন্তও শুরু করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন

আন্ডারওয়ার্ল্ড কানেকশনের জন্য মুম্বই ছেড়েছিলেন কমল?

অভিনেতার গাড়ির চালককে জিজ্ঞাসাবাদ সেই ধারণা আরও একটু পাকা হয়েছে পুলিশের। কারণ, অভিনেতার গাড়ির চালক খালিদ কিদওয়াইয়ের জবানবন্দি তাদের ধারণাকে আরও উষ্কে দিল। খালিদ পুলিশকে জানিয়েছেন, মৃত্যুর আগের দিন সন্ধ্যায় ছেলে ঈশানের সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন। তাই গাড়ি নিয়ে

সোজা হাজির হন ত্রিশূল বিল্ডিংয়ের সামনে যেখানে তাঁর স্ত্রী নন্দিতা ছেলেকে নিয়ে থাকেন। কিন্তু, সেখানে গিয়েও ছেলের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়নি। কারণ, নন্দিতা ও ঈশান— দু’জনেই তখন অন্য কোথাও একটি পার্টিতে গিয়েছিলেন। এর পর খালিদ পুলিশকে বলেন, “এর পর ওম পুরীর সঙ্গে নন্দিতার ফোনে কথা কাটাকাটি হয়। তিনি ছেলের সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন, তাই নন্দিতাকে যত তাড়াতাড়ি ঈশানকে নিয়ে ফিরে আসতে বলেন। এর পর গ্লাসে পানীয় ঢেলে প্রায় ৪৫ মিনিট নন্দিতার ফ্ল্যাটের সামনে অপেক্ষা করেন। এর পরেও ওঁরা (নন্দিতা ও ঈশান) না আসায় গাড়িতে বসে পান করতে শুরু করেন। পানীয় শেষ হলে আমরা সেখান থেকে চলে আসি।”

খালিদ কিদওয়াইয়ের এই জবানবন্দি সামনে আসার পর ওম পুরীর ‘মৃত্যু রহস্য’ আরও ঘনীভূত হল বলে মনে করছেন অনেকেই।