স্কোর:

কলকাতা নাইট রাইডার্স: ১৮৭-৫ (২০ ওভার)

 গুজরাত লায়ন্স: ১৮৮-৬ (১৮.২ ওভারে)

৪ উইকেটে জয়ী  গুজরাত লায়ন্স।

বৃষ্টির বাধা কাটিয়ে ইডেনে ফেভারিট নাইটদের হেলায় হারিয়ে মধুর প্রতিশোধ নিল রায়নার গুজরাত। দশম আইপিএলের প্রথম ম্যাচে এক উইকেট না হারিয়েও গুজরাত লায়ন্সকে হারিয়েছিলেন গৌতম গম্ভীররা। তবে শুক্রবার সেই হারেরই বদলা নিলেন রায়নারা। নাইটদের ৪ উইকেটে হারালেন তাঁরা।

শুক্রবারের ম্যাচে নামার আগেই সৌরভ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়-সহ বহু বিশেষজ্ঞদের মতে ফেভারিট ছিলেন গৌতম গম্ভীররা। এ দিন শুরুটাও সে ভাবেই করেছিলেন তাঁরা। গুজরাতের সামনে ১৮৮ রানের টার্গেট ছিল। রান তাড়া করতে নেমে বৃষ্টিতে সাময়িক ভাবে ম্যাচ থমকে থাকলেও ছন্দ হারায়নি গুজরাত। ১৮৮ রান তাড়া করতে নেমে চালিয়ে খেলতে শুরু করে গুজরাত লায়ন্স। ওপেনার করতে নেমে মাত্র ৩ ওভারেই অ্যারন ফিঞ্চের সৌজন্য তাদের রান ৪০-এর কোঠা টপকে যায়। ১৫ বলে ৩১ রানের (৪x৪, ২x৬) ইনিংস খেলে ফেরেন তিনি। তবে গুজরাতের ৫ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচের রাশ আলগা হতে দেননি গম্ভীর।  কিন্তু, এ দিন সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন সুরেশ রায়না। ৪৬ বলে ৮৪ রান (৯x৪, ৪x৬) করেন তিনি। ম্যাচের সেরাও হলেন তিনি। অধিনায়ক হিসাবেও এ দিন সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেললেন রায়না।

গুজরাত ইনিংসের ৫ ওভার গড়াতে না গড়াতেই বৃষ্টির জন্য সায়মিক ভাবে খেলা বন্ধ করে দিতে হয়। সে সময় ৪.৫ ওভারে গুজরাতের রান ৬২-১। ডাকওর্য়থ-লিউসের জটিল অঙ্কে সে সময় ২১ রানে এগিয়ে ছিল গুজরাত। ফিঞ্চ আউট হয়ে ফিরে যাওয়ার পর ব্রেন্ডন ম্যাকালাম ও সুরেশ রায়না ইনিংস গড়ার দায়িত্ব নেন। তবে ১৭ বলে চালিয়ে খেলে ৩৩ রান করে ফিরে যান ম্যাকালামও। নাথান কোল্টার-নাইলের বলে ফর্মে থাকা দীনেশ কার্তিকের দুর্দান্ত ক্যাচ তুলে নেন গম্ভীর। তবে এক দিক ধরে রেখে খেলতে থাকেন গুজরাত অধিনায়ক রায়না। রায়নার অর্ধশতরানের জন্য লড়াই থেকে কখনও হারিয়ে যায়নি গুজরাত।

আরও পড়ুন

ইডেনে আজ এগিয়ে থাকবে কেকেআর

গুজরাত ইনিংসের শুরুতেই ম্যাকালামের মার। ছবি: পিটিআই।

এ দিন ম্যাচ শুরুর আগে থেকেই ফেভারিটের তকমা গায়ে নিয়ে ইডেনে নেমেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। গুজরাতের বিরুদ্ধে কেকেআরকে এগিয়ে রেখেছিলেন স্বয়ং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। শুক্রবার ইডেন গার্ডেনসে খেলতে নেমে ফেভারিটের মতোই শুরু করলেন গৌতম গম্ভীররা। ওপেন করতে নেমে ফের সুনীল নারাইনের ব্যাটিং ঝড় দেখা গেল। ম্যাচের শুরুতেই ছন্দটা বেঁধে দেন নারাইন। মাত্র ১৭ বলে ৪২ রানের (৯x৪, ১x৬) ইনিংস খেললেন তিনি। তবে গুজরাত অধিনায়ক রায়না নিজের হাতে বল তুলে নিতেই যেন ম্যাজিক। নারাইনকে স্পিনের ফাঁদে ফেলে প্যাভেলিয়নে ফেরান তিনি। তবে তত ক্ষণে মাত্র ৩.২ ওভারে নাইটদের ঘরে চলে এসেছে ৪৫ রানের সংগ্রহ।

কেকেআরের হয়ে ৭২ রানের দামি ইনিংস খেললেন উত্থাপ্পা।

এ দিন দলে দু’টি পরিবর্তন করেছেন গুজরাত অধিনায়ক রায়না। অ্যান্ড্রু টাইয়ের বদলে দলে এসেছেন অলরাউন্ডার জেমস ফকনার এবং শিবিল কৌশিকের জায়গায় খেলছেন প্রবীণ কুমার। এ বারের আইপিএলে নাইটদের দলে প্রথম বার দেখা যাবে সাকিব আল হাসানকে। বাঁ-হাতি স্পিনারের বিরুদ্ধে ব্রেন্ডন ম্যাকালামের রেকর্ডের কথা ভেবেই সম্ভবত তাঁকে দলে এনেছেন নাইট অধিনায়ক গম্ভীর। টি-টোয়েন্টিতে এ ম্যাচের আগে পর্যন্ত ২০ বার বাঁ-হাতি স্পিনারের শিকার হয়েছেন ম্যাকালাম।

নারাইনের পাশে থেকে ২৮ বলে ৩৩ রানের ইনিংস খেললেন কেকেআর অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর। তবে নারাইনের ফিরে যাওয়ার মাঠে নেমে ফের নিজের নির্ভরযোগ্যতা প্রমাণ করলেন রবিন উত্থাপ্পা। মাত্র ৪৮ বলে ৭২ রানের ইনিংসে নাইটদের শক্ত জমিতে দাঁড় করিয়ে দিলেন তিনি। মূলত রবিনের ৮টা চার আর ২টি বিশাল ছক্কা দিয়ে সাজানো ইনিংসের জোরেই লায়ন্সের সামনে বড় রানের টার্গেট রাখে কেকেআর। তবে রায়নার দাপটে শেষমেশ রবিনের সেই ইনিংস জলে গেল।