রাত আটটায় শুরু ফুটবল ম্যাচ। জেড্ডার কিঙ্গ আবদুল্লা স্টেডিয়ামে সৌদি প্রিমিয়ার লিগে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই আল আহিল আর আল বাতিন ক্লাবের মধ্যে। খানিকটা আমাদের ইস্টবেঙ্গল আর মোহনবাগান ম্যাচের মতো। তবে শুক্রবার খেলা বা খেলোয়াড়ের থেকে বেশি নজর কেড়েছে দর্শকাসন। এই প্রথম সৌদি আরবের কোনও ফুটবল ম্যাচে দর্শক হিসেবে হাজির থাকার অধিকার পেয়েছেন দেশের মহিলারা। তা-ও কোনও পুরুষ সঙ্গী ছাড়া! সৌদির ইতিহাসে নতুন যুগের শুরু।

যে দেশে মেয়েরা পুরুষসঙ্গী ছাড়া ঘরের বাইরে পা রাখতে পারেন না, সেখানে পুরুষ অভিভাবক ছাড়াই মাঠে গিয়ে মেয়েরা ফুটবল ম্যাচ দেখবেন, প্রিয় দলের পতাকা ওড়াবেন, এ তো এক রকম বিপ্লব!

শুক্রবার জেড্ডা, শনিবার রিয়াধ এবং পরের বৃহস্পতিবার দাম্মামে— পর পর তিনটে ফুটবল ম্যাচে মহিলাদের প্রবেশাধিকার দিয়েছে সৌদি সরকার। শুক্রবার জে়ড্ডায় স্টেডিয়ামের বাইরে খুশি খুশি মুখে ম্যাচের টিকিট হাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বছর বত্রিশের তরুণী লামিয়া খালেদ নাসির। বললেন, ‘‘মাঠে আসতে পেরে মহিলা হিসেবে আজ আমি গর্বিত। চোখের সামনেই বদলে যাচ্ছে সব কিছু।’’

আরও পড়ুন: নীরজাদের ঘাতক সেই বিমান ছিনতাকারীদের সাম্প্রতিক ছবি প্রকাশ

এই বদলটা আসলে শুরু হয়েছে গত বছর। প্রিন্স মহম্মদ বিন সলমনের ‘ভিশন ২০৩০’ প্রকল্পকে সামনে রেখে একটু একটু করে পর্দা উঠছে রক্ষণশীল সৌদি সমাজের। ধাপে ধাপে মুক্তির স্বাদ পাচ্ছেন মেয়েরাও। গত বছর সেপ্টেম্বরে মহিলাদের গাড়ি চালানোর অধিকার দিয়ে পরিবর্তনের হাওয়া তুলেছিল সৌদি সরকার। একই মাসে দেশের জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে রিয়াধের একটি স্টেডিয়ামে সেই প্রথম পুরুষদের পাশাপাশি আনন্দ ভাগ করে নিয়েছিলেন মেয়েরাও। মহিলারা কেবল পুরুষের ছায়া নন, তাঁরাও যে সমাজের অংশ— সে দিনের অনুষ্ঠানে এই বার্তাই দিয়েছিল সরকার। সেই শুরু। এর পর কখনও গানের অনুষ্ঠানে মহিলা শিল্পী এনে, কখনও বিশ্ববিদ্যালয় স্তরে মেয়েদের বাস্কেটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করে একের পর এক প্রথা ভেঙেছে প্রশাসন। বৃহস্পতিবার জেড্ডায় উদ্বোধন হয়েছে শুধু মহিলা ক্রেতাদের জন্য একটি মোটরগাড়ির শো-রুমও।

সৌদির ‘অর্ধেক আকাশ’ এই বদলে খুশি। জেড্ডার ফুটবর পাগল মেয়ে নওরা বাখরাজি হাসতে হাসতে বললেন, ‘‘টিভিতেই খেলা দেখতাম। মাঠ থেকে ফিরে ভাই যখন উত্তেজিত হয়ে সেই বর্ণনা দিত, ভাবতাম আমি কেন যেতে পারি না! এ বার আমিও মাঠে গিয়ে খেলা দেখব।’’

তবে এখনও পুরুষদের সঙ্গে একই ব্লকে বসার অনুমতি মেলেনি মেয়েদের। স্টেডিয়ামের একটি বিশেষ অংশ শিশু ও মহিলাদের আলাদা আসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি মহিলা দর্শকদের উৎসাহ দিতে লটারির মাধ্যমে জে়ড্ডা,

রিয়াধ, দাম্মাম যাওয়ার ফ্রি টিকিটের ব্যবস্থাও করেছে সৌদি আরবের সরকারি উড়ান সংস্থা।