ক্লান্ত লাগলে জলদি এনার্জি বাড়াতে কী করা উচিত? কেউ বলবেন কফি খাওয়া উচিত, কেউ বলবেন চা, তো কেউ বলবেন ঠান্ডা জলে স্নান করা উচিত। কিন্তু এই অবস্থায় আবার পরিশ্রম করার কথা ভাবতে পারছেন কি? চিকিত্সক ও ফিটনেস এক্সপার্টরা কিন্তু বলছেন সেটাই উপায়। তাদের দাবি, এনার্জি কমে এলে টানা ১০ মিনিট সিঁড়ি দিয়ে ক্রমাগত ওঠানামা করুন। এতেই বে়ড়ে যাবে এনার্জি।

ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার গবেষকরা জানাচ্ছেন ১০ মিনিট সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করলে যে পরিমাণ এনার্জি বাড়ে, সেই পরিমাণ এনার্জি বাড়াতে ৫০ মিলিগ্রাম কফি খাওয়া প্রয়োজন। গবেষক প্যাট্রিক জে. ও’কনারের মতে, কফি খেলে এনার্জেটিক লাগে ঠিকই। কিন্তু তা সাময়িক। ১০ মিনিট সিঁড়ি ভাঙার মতো এক্সারসাইজ এনার্জি বাড়াতে ও দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার উদ্যম ধরে রাখতে সাহায্য করে।

অফিসে টানা ৯ ঘণ্টা কম্পিউটারের স্ক্রিনের সামনে এক ভাবে বসে কাজ করতে করতে অনেক সময়ই ক্লান্ত অনুভব করেন কর্মীরা। সেই সঙ্গেই শরীরচর্চার অভাবের কারণে আরও বেশি এনার্জির অভাবে ভুগতে থাকি আমরা। এই গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের প্রথমে এক দিন এনার্জি বাড়াতে ক্যাফেইন ক্যাপসুল দেওয়া হয়। অপর দিন তাদের ১০ মিনিট ধরে ধীর গতিতে প্রায় ৩০ তলা ওঠানামা করতে বলা হয়। ও’কনার চেয়েছিলেন এমন কোনও শরীরচর্চা করাতে যা আমরা সাধারণ দিনে অফিস সেট আপে থেকেই করতে পারি। অফিসে অল্প সময়েরই ব্রেক পাওয়া যায়। এই সময়ের মধ্যে শরীরচর্চা করা, পোশাক বদলানো সম্ভব হয় না। ও’কনার জানান, অফিসের কর্মীরা হাঁটার জন্য বাইরে যেতে পারেন। তবে এনার্জির বাড়ানোর জন্য তা বিশেষ উপযুক্ত নয়। আবার আজকাল বেশির ভাগ অফিসই মাল্টিস্টোরিড কর্পোরেট বিল্ডিং। তাই সিঁড়ি ভাঙার সুযোগ সকলেরই প্রায় থাকে। তাই কাজ থেকে ব্রেক নিয়ে সিঁড়ি ভাঙাও যেমন সহজ শরীরচর্চা, তেমনই তা এনার্জি বাড়াতেও সাহায্য করে।

আরও পড়ুন: ইনসমনিয়ায় ভুগছেন? ঘুমের আগে খান মধু

সিঁড়ি ভাঙার প্রভাব বুঝতে ও’কনার একদল মহিলা কলেজ পড়ুয়াকে নিয়েও এই গবেষণা করেন। যাদের মূল অভিযোগ ছিল, রাতে সাড়ে ৬ ঘণ্টার বেশি ঘুমের সময় পান না। তাই দিনের অধিকাংশ সময়ই এনার্জির অভাবে ভুগতে থাকেন। ক্যাফেইন বনাম এক্সারসাইজের প্রভাব পরীক্ষা করতে তাদের কিছু মৌখিক ও  কিছু কম্পিউটার-বেসড প্রশ্নের উত্তর দিতে বলা হয়। দেখা যায়, সিঁড়ি ভাঙার ফলে তারা অনেক বেশি উদ্যমী অনুভব করছেন।

সাইকোলজি অ্যান্ড বিহেভিয়ার জার্নালে এই গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে।