তিরিক্ত ওজনের জন্য বাড়ছে নানা শারীরিক সমস্যা। হার্ট বা ডায়াবেটিসের মতো সমস্যার পাশাপাশি ক্যানসারের মতো ভয়াবহ রোগের ঝুঁকিও বাড়িয়ে দিচ্ছে অতিরিক্ত ওজন বা ওবেসিটির সমস্যা। ব্রিটেনের ইম্পেরিয়াল কলেজের গবেষকরা জানাচ্ছেন, শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমলে ফ্যাট কোষ হরমোন ও প্রোটিন তৈরি করে। এই হরমোন ও প্রোটিন রক্তে বাহিত হওয়ার পাশাপাশি সারা শরীরে সঞ্চারিত হয়। যা বিভিন্ন রকম ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়।

আরও পড়ুন: অল্প বয়সে বেশি অ্যান্টিবায়োটিক বাড়িয়ে দেয় ক্যানসারের ঝুঁকি

শুধু তাই নয়। ফ্যাট কোষ শরীরে ক্যানসার কোষের বৃদ্ধিতেও মদত দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী এই মুহূর্তে বিশ্বে ১৯০ কোটি মানুষ ওবেসিটির শিকার। এবং এই অতিরিক্ত ওজন তাদের অন্তত ১৩ ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে দিচ্ছে।

যে ক্যানসারগুলোর ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় ওবেসিটি

প্যানক্রিয়াটিক (অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসার)

ইসোফেগাল (খাদ্যনালীর ক্যানসর

লিভার (যকৃত)

স্টমাক (পাকস্থলী)

কোলন

রেক্টাম

গলব্লাডার

ফুসফুস

কিডনি

ইম্পেরিয়াল কলেজের গবেষণা অনুযায়ী, এর মধ্যে স্তন ও কোলন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। চিকিত্সা ও নিরাময় সবচেয়ে কঠিন প্যানক্রিয়াটিক, ইসোফেগাল ও গল ব্লাডার ক্যানসারের ক্ষেত্রে।

মহিলাদের ক্ষেত্রে যে ক্যানসারগুলোর ঝুঁকি বাড়ে

 

স্তন

ডিম্বাশয়

জরায়ু

এই গবেষণার উল্লেখ করে বিএলকে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ডিরেক্টর অব বেরিয়াট্রিক অ্যান্ড গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল অঙ্কোলজি সার্জারি দীপ গোয়েল বলেন, ‘‘ওবেসিটি ক্যানসারের চিকিত্সা অনেক জটিল করে তোলে। যদি কোনও স্বাভাবিক ওজনের মানুষ ও কোনও অতিরিক্ত ওজনের মানুষ একই সময় প্যানক্রিয়াটিক ক্যানসারের একই পর্যায় চিকিত্সা শুরু করেন তা হলে অতিরিক্ত ওজনের রোগীর ক্ষেত্রে চিকিত্সা ও নিরাময় অনেক জটিল হবে। শরীরে মেদ জমতে থাকলে রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা বেড়ে যায়। অতিরিক্ত ইনসুলিন ক্যানসার কোষের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। ফ্যাট শরীরে সেক্স হরমোনের ক্ষরণও বাড়িয়ে দেয়। মাত্রাতিরিক্ত ইস্ট্রোজেন ও টেস্টোস্টেরন ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে।’’