কারও নম্বর ছিল ৪২, স্ক্রুটিনির পর বেড়ে হল ৯০! কারও ৬৮ বেড়ে হল ৯৫, তো কারও ৯ বেড়ে হল ৪৫! এমনই আজব ঘটনা ঘটেছে এ বারের সিবিএসই-র দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায়। আর যার জেরে আতঙ্কে লক্ষাধিক পড়ুয়া। নম্বরে যে সমস্যা রয়েছে তা মেনে নিয়েছে সিবিএসই-ও।

দিল্লির সোনালি এ বছরই সিবিএসই দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা দিয়েছিলেন। কিন্তু, পরীক্ষার ফল পাওয়ার পরই তাঁর চক্ষু চড়কগাছ। অর্থনীতিতে ৯৯, অ্যাকাউন্টেন্সিতে ৯৫, বিজনেস স্টাডিজে ৯৬ পেলেও অঙ্কে তাঁর নম্বর ছিল মাত্র ৬৮। মার্কশিট পাওয়ার পর প্রায় একই রকম অবস্থা হয় সমীক্ষা শর্মারও। ইংরাজি, বিজনেস স্টাডিজ বা ফাইন আর্টসে ভাল নম্বর থাকলেও অঙ্কে নম্বর ছিল মাত্র ৪২। দু’জনেই রিভিউয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। রিভিউয়ের পর সোনালির অংকের নম্বর ৬৮ থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৯৫। ৪৮ নম্বর বেড়ে সমীক্ষার নম্বর পৌঁছয় ৯০-তে।

আরও পড়ুন: জীবনের গল্পেই বইয়ের শিক্ষা

শুধু সোনালি বা সমীক্ষার কথা কেন? একই অভিজ্ঞতার মুখোমুখী হয়েছেন বহু ছাত্রছাত্রী। রিভিউয়ের পর কারও অর্থনীতিতে নম্বর ৯ থেকে বেড়ে হয়েছে ৪৫, কারও আবার ইংরাজির নম্বর ৩০ থেকে বেড়ে হয়েছে ৬৩। স্বভাবতই এর ফলে আতঙ্কে পড়ুয়ারা।

কেন এমন ঘটনা ঘটল, তা বোর্ডের তরফে স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি। যদিও নম্বরে কিছু গরমিল হয়েছে বলে মেনে নিয়েছেন সিবিএসই-এর এক শীর্ষ আধিকারিক। তবে, ভবিষ্যতে এমন ঘটনা রুখতে কী পদক্ষেপ করা হবে সে সম্পর্কেও কিছু জানাননি তিনি।