রাজ্যে মদ্যপানের ক্ষেত্রে ন্যূনতম বয়স ছিল ২১। এ বার সেই নীতিতে বদল আনতে চলেছে কেরল সরকার।

২৩ বছরের নীচে মদ্যপান নিষিদ্ধ। বুধবার, এমন সিদ্ধান্তই নিয়েছে কেরল সরকার। খুব শীঘ্রই আবগারি আইনে এ বিষয়ে সংশোধনী আনা হবে বলে সরকারের তরফে ঘোষণা করা হয়েছে।

গত বছরই মদ্যপানে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল বিহার সরকার। মদ্যপান নিষিদ্ধ গুজরাতেও। বিহার-গুজরাতের মতোই রাজ্য জুড়ে মদ বিক্রি বন্ধ ছিল কেরলে। পর্যটনের স্বার্থে পরবর্তী কালে নীতি পরিবর্তন করে সেই অবস্থান থেকে সরে আসে তারা।

আরও পড়ুন: 

গুজরাতের মসনদে এখনও মোদীর পাদুকাই

‘লভ জিহাদ’ বিদ্বেষ! মালদহের যুবককে কুপিয়ে, পুড়িয়ে খুন রাজস্থানে

রাজ্যের আবগারি মন্ত্রী টি পি রামকৃষ্ণন বলেছেন, ‘‘মদ বিক্রি বন্ধ করলেই সমস্যার সমাধান হবে না। বিশ্বের কোথাও এই ধরনের নিষেধাজ্ঞা ফলপ্রসূ হয়নি। মদে নিষেধাজ্ঞা জারি হলে বরং অন্যান্য ক্ষতিকর নেশায় আসক্ত হয়ে পড়বে যুবসমাজ’’। পাশাপাশি, মদ বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি হলে তার প্রভাব পড়বে রাজ্যের পর্যটন শিল্পেও। বস্তুত, দেশে মদ বিক্রির নিরিখে অন্ধ্রপ্রদেশের পরই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে কেরল। মদ থেকে প্রতি বছর ৪০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করে সরকার।

রামকৃষ্ণন জানিয়েছেন, পর্যটনের স্বার্থে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞার বদলে অল্পবয়সীদের মধ্যে মদের নেশা কমাতেই বদ্ধপরিকর সরকার। তাই মদ্যপানের বয়সসীমা ২১ থেকে বাড়িয়ে ২৩ বছর করা হচ্ছে। নয়া নীতি চালুর পর রাজ্যে সর্বত্র মদের দোকানগুলিতে কড়া নজরদারি চালানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।