তাঁর ছেলে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়ন্ত সিন্‌হার আর্থিক লেনদেন নিয়ে তদন্ত হওয়া উচিত। তবে সেই সঙ্গে তদন্ত করতে হবে অমিত শাহের ছেলে জয়ের বিরুদ্ধেও। এই দাবি তুলে বিজেপিকে আজ চরম অস্বস্তিতে ফেলে দিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিন্‌হা।

সম্প্রতি প্যারাডাইস পেপারস দুর্নীতিতে নাম জড়িয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকারের মন্ত্রী জয়ন্ত সিন্‌হার। তিনি যদিও দাবি করেছেন, ওই সংক্রান্ত আর্থিক লেনদেনের বিষয় তাঁর ব্যক্তিগত নয়। যে সংস্থার হয়ে কাজ করতেন, তারাই লেনদেনে জড়িয়ে। তবে গোটা বিষয়টিতে বেআইনি কিছু হয়নি বলেই দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তবে মোদীর মন্ত্রীর এই ব্যাখ্যা খুশি করতে পারেনি বিরোধীদের। এরই মধ্যে জয়ন্তকে সামনে রেখেই নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী সরকারের অর্থমন্ত্রী।

এর আগে কখনও নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত, কখনও জিএসটি— মোদী সরকারকে বারবার নিশানা করেছেন যশবন্ত। কিন্তু পুত্র জয়ন্ত বাবার পাশে দাঁড়াননি। এ বার কিন্তু খুবই কৌশলে বিজেপি সভাপতির বিরুদ্ধে মাঠে নামলেন যশবন্ত। বললেন, জয়ন্তের পাশাপাশি জয়ের লেনদেনকেও নিয়ে আসা হোক আতসকাচের নীচে। অমিত শাহ ক্ষমতায় থাকার সময়ে তাঁর পুত্র জয়ের ব্যবসা কী ভাবে লাফিয়ে বেড়েছে, তা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হতেই বিরোধীরা মোদী সরকারকে চেপে ধরেছিল। বিষয়টি নিয়ে মানহানির মামলাও হয়েছে। এখন যশবন্ত বলছেন, প্যারাডাইস পেপারসে যাঁদের নাম এসেছে, সবাইকে নিয়ে তদন্ত হোক। কিন্তু জয়ন্ত সিন্‌হার বিরুদ্ধে তদন্ত হলে জয় শাহের বিরুদ্ধে কেন হবে না— প্রশ্ন তোলেন তিনি। আগামী মঙ্গলবার গুজরাতের রাজকোটে একটি সভায় যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর। অনেকেই মনে করছেন, ভোটের আগে সেখানে বিজেপির অস্বস্তি বাড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে যাবেন যশবন্ত।

আরও পড়ুন: রূপাণীর সঙ্কটে কি দলেরই হাত!

এ দিনই জিএসটি নিয়ে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির ভূমিকার সমালোচনা করে তাঁর ইস্তফার দাবি তোলেন সিন্‌হা। গুজরাত ভোটের আগে বিজেপির উপর চাপ আরও বাড়াতে সংরক্ষণের সীমা আরও বাড়ানোর ব্যবস্থা করতে একটি কমিশন গড়ার দাবিও করেছেন তিনি।