১৩ কার্তিক ১৪২১ বৃহস্পতিবার ৩০ অক্টোবর ২০১৪ | কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ weather forecast সর্বোচ্চ : ৩১.৫ °C     সর্বনিম্ন : ২১.৫ °C

বক্স-মাইকের দাপটে ছুটল ঘুম

1

শব্দবাজি নিয়ন্ত্রণে উতরে গেলেও কালীপুজোর বিসর্জনে সাউন্ডবক্স ও মাইকের অত্যাচার বন্ধে ডাহা ফেল করল রঘুনাথপুর মহকুমা পুলিশ। গত ক’দিন ধরে পুলিশের উপস্থিতিতেই শব্দবিধিকে আক্ষরিক অর্থেই বুড়ো আঙুল দেখিয়ে প্রচুর সংখ্যায় সাউন্ডবক্স ও মাইক বাজিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত প্রতিমা বিসর্জন চলল। শুধু রেল শহর আদ্রাতেই নয়, এই ছবি দেখা গিয়েছে পুরো রঘুনাথপুর মহকুমা জুড়েই। আদ্রা থেকে শুরু করে রঘুনাথপুর শহর, আনাড়া, কাশীপুর, সাঁওতালডিহি সর্বত্রই প্রতিমা বিসর্জনে শব্দবিধি পুজো উদ্যোক্তারা মানেননি বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের।

নিজস্ব সংবাদদাতা
২৯ অক্টোবর, ২০১৪

হাতির হানায় সদর ব্লকে ব্যাপক শস্যহানি

নিজস্ব সংবাদদাতা

মেদিনীপুর সদর ব্লকের বিভিন্ন এলাকায় ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করল হাতির দল। দলমার এই দলটিতে প্রায় ৫০টি হাতি রয়েছে বলে বন দফতর সূত্রে খবর। দলটি এখন খড়্গপুরের কলাইকুণ্ডা রেঞ্জ এলাকায় রয়েছে। সোমবার সকালে মেদিনীপুর সদর ব্লকের শুখনাখালির জঙ্গলে ছিল দলটি। বিকেলে সেখান থেকে বেরিয়ে একের পর এলাকায় দাপিয়ে বেড়াতে শুরু করে। এলাকার দাপিয়ে বেড়ানোর ফলে মূলত প্রচুর ফসলেরই ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

২৯ অক্টোবর, ২০১৪

এ ব্যথা ‘ডি জে ব্যথা’, বিঁধেছে কানে কানে

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৮ অক্টোবর, ২০১৪

নিষেধ উড়িয়ে পুকুরে প্রতিমা নিরঞ্জন চলছেই

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৮ অক্টোবর, ২০১৪

চিত্র সংবাদ

২৮ অক্টোবর, ২০১৪

প্রকৃতির খেয়ালে অকাল তুষারপাত

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৭ অক্টোবর, ২০১৪

দু-তিন দিন ধরেই জমছে জঞ্জাল, ক্ষোভ

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৭ অক্টোবর, ২০১৪

‘অভিভাবক’ ছাড়াই চলছে বন দফতর

রাহুল রায়

পদ রয়েছে। নেই দফতরের শীর্ষ পদাধিকারী। মাস ঘুরতে চলল, রাজ্যের বন দফতরের ‘হেড অব ফরেস্ট’ বা হফ-এর পদে কাউকে নিয়োগ করেনি রাজ্য সরকার। ফল যা হওয়ার, তাই হয়েছে। দফতরে স্তূপীকৃত ফাইল। থমকে রয়েছে বনকর্তাদের বদলি কিংবা তাঁদের কাজের মূল্যায়ন সংক্রান্ত রিপোর্ট তৈরি। মাঝ পথেই আটকে গিয়েছে বনকর্মী-নিয়োগও। যার পরোক্ষ প্রভাব পড়ছে বন প্রহরায়। বিশেষ করে উত্তরবঙ্গে। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, উত্তরবঙ্গে একের পর এক চোরাশিকারের ঘটনার পরে তদন্তের ভার সিআইডি-র হাতে তুলে দেওয়া দরকার বলে মনে করছেন বনকর্তাদের অনেকেই।

২৬ অক্টোবর, ২০১৪

আতসবাজির দূষণ টের পেল মহানগর

দেবদূত ঘোষঠাকুর

২৫ অক্টোবর, ২০১৪

বেতলায় হরিণ-নিধনের কিনারায় কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৫ অক্টোবর, ২০১৪

বাগানের নালা থেকে শাবককে নিয়ে গেল হাতির দল

নিজস্ব সংবাদদাতা

২৫ অক্টোবর, ২০১৪

জলদাপাড়ার গন্ডার শাবক চলল আলিপুর

নিজস্ব সংবাদদাতা

দিন কয়েক হল আলিপুর চিড়িয়াখানায় এসেছে কচ্ছপ দম্পতি। শীতের সেজে ওঠা পশুশালায় এ বার পা পড়ছে মা-হারা এক গন্ডার শাবকের। জলদাপাড়া থেকে দিন কয়েকের মধ্যেই তার কলকাতা পাড়ি দেওয়ার কথা। কলকাতা চিড়িয়াখানার ডিরেক্টর কানাইলাল ঘোষ এ খবরে তাঁর উচ্ছাস আড়াল করছেন না, “অনেক দিন পরে দর্শকদের কাছে শীতের চিড়িয়াখানার চেহারাটাই বদলে যেতে চলেছে।”

২৪ অক্টোবর, ২০১৪

আতসবাজিও বিষ ছড়াচ্ছে দূষণের

কুন্তক চট্টোপাধ্যায়

২৩ অক্টোবর, ২০১৪

প্লাস্টিক-ব্যাগ নিষিদ্ধ শহরে, মানল পর্ষদ

নিজস্ব সংবাদদাতা

পরিবেশপ্রেমীদের চাপে শিলিগুড়িতে সব রকম প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগের ব্যবহার এখনও যে নিষিদ্ধ তা মানল রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। বুধবার সকালে শিলিগুড়ির বিভিন্ন পরিবেশ প্রেমী সংগঠন এবং প্রাক্তন জনপ্রতিনিধিরা পর্ষদের শিলিগুড়ি আঞ্চলিক অফিসে স্মারকলিপি দিতে যান। জাতীয় গ্রিন ট্রাইবুনালের জারি করা গত ৩০ সেপ্টেম্বরের একটি নির্দেশ ঘিরে শিলিগুড়িতে প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বির্তক তৈরি হয়। প্লাস্টিক ব্যবসায়ীদের একটি অংশ দাবি করেন, নিষেধাজ্ঞাটি বাতিল করে দিয়েছে ট্রাইবুনাল।

২৩ অক্টোবর, ২০১৪

চোরাশিকারের তথ্য নেই এখনও

নিজস্ব সংবাদদাতা

গন্ডার মেরে খড়গ লোপাটের ঘটনার পাঁচ দিন পরেও দুষ্কৃতীদের খোঁজ পেল না বন দফতর। তড়িদাহত হয়ে হাতির মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদেরও খোঁজ মেলেনি। মঙ্গলবার নাগরাকাটার পানঝোরা এবং বানারহাট থানার আপার কলাবাড়ি বস্তিতে দু’টি হাতির দেহ মেলে। বনকর্তারা দাবি করেন, শস্যের খেতে বিছিয়ে রাখা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে হাতি দু’টি মারা গিয়েছে। পানঝোরা এলাকায় বিদ্যুতের তার বাজেয়াপ্ত করে জমির মালিকের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়। আপার কলাবাড়ি এলাকায় বনকর্মীরা তার খুঁজে পাননি।

২৩ অক্টোবর, ২০১৪

জমিতে তার, চোরাশিকারি নজরে পড়লেই খবর দিন

অরিন্দম সাহা

তড়িদাহত হয়ে হাতি মৃত্যুর ঘটনা রুখতে পুরস্কার চালু করার কথা ভাবছে বন দফতর। ওই ব্যাপারে পৃথক আর্থিক বরাদ্দ চেয়ে ইতিমধ্যে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে উত্তরবঙ্গের বনকর্তাদের তরফে একটি প্রস্তাবও পাঠানো হয়েছে। দফতর সূত্রের খবর, বনাঞ্চল লাগোয়া বসতি এলাকায় আবাদি জমিতে বিদ্যুৎ সংযোগের ঘেরাটোপ করা সংক্রান্ত আগাম খবর পেতেই পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। রাজ্যের বনমন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মনও ওই ব্যাপারে আগ্রহী।

২৩ অক্টোবর, ২০১৪

দূষণ রুখতে কড়া পদক্ষেপ

গঙ্গা দিয়ে বয়ে গিয়েছে অনেক জল। কিন্তু পরিস্থিতির কোনও পরিবর্তন হয়নি। বারবার সুপ্রিম কোর্টের ভর্ত্‌সনা সত্ত্বেও গঙ্গা দূষণের মাত্রা বেড়েই চলেছে উত্তরোত্তর। তাই বুধবার আবার মুখ খুলতে বাধ্য হল সুপ্রিম কোর্ট। দূষণ রুখতে জাতীয় পরিবেশ আদালতকে কলকারখানাগুলির বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতে বলল শীর্ষ আদালত।

পড়ুন