চার্লস ডি’সুজার সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেও চুক্তি ভাঙতে পারছেন না ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারটির মাঠের পারফরম্যান্স খুব খারাপ। তাতেও যে ভাবে বাড়তি টাকার দাবি করছেন চার্লস তাতে কর্তারা বিস্মিত। তিনি ছাঁটাই হচ্ছেন জেনেও শুক্রবার বিকেলে খালিদ জামিলের অনুশীলনে হাজির হয়েছিলেন চার্লস।

চার্লসকে নিয়ে সমস্যা না মেটায় ডুডু ওমেগবেমিকে বিমানের টিকিট পাঠাতে পারছে না ইস্টবেঙ্গল। ফলে গুরুত্বপূর্ণ আইজল ম্যাচে ডুডুকে পাচ্ছেন না লাল-হলুদ কোচ। তাঁকে হয়তো দেখা যাবে ডার্বিতে।

ডার্বির আগে দুই প্রধান বদলে ফেলছে তাদের দু’জন স্ট্রাইকার। এবং  সবথেকে মজার ব্যাপার ডুডুর মতো মোহনবাগানের আক্রম মোগরাভিও পরিচিত এদেশে। শুধু তাই নয় দু’জনের বয়স-ই বত্রিশের বেশি। এই অবস্থায় তাঁরা বড় ম্যাচে কতটা সফল হবেন তা নিয়ে টেনশনে দুই ক্লাবের কর্তারাই।

তবে মাঠের বাইরে বিশৃঙ্খল আচরণের জেরে আনসুমানা ক্রোমাকে ছেড়ে দিতে অসুবিধা হয়নি মোহনবাগানের। কর্তাদের প্রশ্নের মুখে পড়ে চুক্তি ভাঙার চিঠিতে সই করে দেন মোহনবাগানের এই স্ট্রাইকার। ফলে তাঁর বদলি আক্রম ভিসার আবেদন করে দিয়েছেন। সামনের সপ্তাহেই তাঁর সবুজ-মেরুন জার্সি পড়ার কথা। 

২১ জানুয়ারি ডার্বির আগে মঙ্গলবার আইজলের সঙ্গে খেলা আছে আল আমনাদের। এই ম্যাচ জিততে পারলে একই সঙ্গে দুই পাখি মারতে পারবেন খালিদ। লিগ টেবলের শীর্ষে পৌছে যাওয়ার পাশাপাশি মোহনবাগানের বিরুদ্ধে খেলতে নামার আগে বাড়তি আত্মবিশ্বাস পেয়ে যাবেন উইলিস প্লাজারা। কিন্তু পাহাড়ে যাওয়ার আগে ইস্টবেঙ্গলে অনুশীলনে তো বিদেশিরাই প্রায় নেই। বাজো আর্মান্ড আর ইউসা কাতসুমি ছাড়া বাকি সবাই মাঠের পাশে ব্রাজিলিয়ান ফিজিও গার্সিয়ার কাছে ফিজিক্যাল ফিটনেস ট্রেনিং করলেন। আল আমনা, উইলিস প্লাজা, এদুয়ার্দো পেরিরা— বল পায়ে নামেননি এ দিনও। তবে ক্লাব সূত্রের খবর তিন জনকেই নিয়ে যাওয়া হবে রবিবার।

আই লিগে মোহনবাগানের অবশ্য ডার্বির আগে কোনও ম্যাচ নেই। ফলে আপাতত সনি নর্দেদের চোট আঘাতই মাথাব্যথা কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তীর।  অনুশীলন বন্ধ থাকলেও অবশ্য এ দিন সনি ছাড়াও ইউসা কিনওয়াকি, শিল্টন ডি সিলভা, আজহারউদ্দিনরা  অনুশীলন করলেন ফিজিও-র কাছে। সনি বিকেলে গিয়েছিলেন সুইমিং পুলে। হাঁটুর ব্যাথায় দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে থাকা হাইতি মিডিও ডার্বিতে কিছু করে দেখাতে মরিয়া। তিনি জানেন, লিগ খেতাব থেকে দূরে সরে গেলেও ডার্বি জিতলে সমর্থকরা খুশি হবেন। ইউতা চোট সারিয়ে ফিরলেও ম্যাচ ফিট হতে সময় লাগবে তাঁর। আই লিগের প্রথম ডার্বিতে দুর্দান্ত খেলেছিলেন ইউতা। তাঁকে প্রথম আঠারোয় রাখা আদৌ সম্ভব কী না তা নিয়েই সন্দেহ আছে ক্লাবের অন্দরমহলে।