তিনি এখানে পৌঁছনোর পর থেকেই তাঁকে নিয়ে ভক্তদের মাতামাতির শেষ নেই। তা সে তাঁর প্র্যাকটিস সেশন হোক বা ভক্তদের অটোগ্রাফ দেওয়ার সময়। চিনের শেনজেনে মারকাটারি ভিড় সামলানে হিমসিম খেতে হচ্ছে নিরাপত্তারক্ষীদের।

ডোপ কেলেঙ্কারির শাস্তি কাটিয়ে কোর্টে ফেরার পরে তাঁকে আর যেখানেই সমালোচনার মুখে পড়তে হোক। চিনে কখনও হয়নি। বরং এখানে হয়তো তাঁর খেলোয়াড়ি ছবি ছাপিয়ে গিয়েছে জীবনে তাঁর প্রতিকূলতাকে জয় করার অদম্য মানসিকতা। ভক্তদের কাছে তিনি এখানে মানবী নন, দেবী। তিনি— মারিয়া শারাপোভা।

শেনজেন ওপেনে শারাপোভা মরসুমের শুরুটাও করলেন মেজাজে। প্রথম রাউন্ডে রুশ তারকা ৬-৩, ৬-০ উড়িয়ে দেন মিহায়েলা বুজারনেস্কুকে। ম্যাচে শারাপোভা প্রবল দর্শক সমর্থন যে পাবেন তাতে কোনও সন্দেহ ছিল না। রীতিমতো পোস্টার নিয়ে তাঁর ভক্তরা হাজির হয়েছিলেন ম্যাচে। কোথাও লেখা ছিল, ‘আমরা তোমার পাশে আছি মারিয়া’, কোথাও লেখা ‘এখান থেকেই ফের বিশ্বসেরার সিংহাসনে বসার যাত্রা শুরু হোক তোমার।’

আরও পড়ুন: ‘কেপটাউনে ব্রহ্মাস্ত্র সেই অশ্বিনই’

তারকা: শেনজেনে মারিয়ায় অটোগ্রাফ নিতে ভিড়। ছবি: টুইটার

১ ঘণ্টা ২২ মিনিটের লড়াইয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছে এ বার শারাপোভার সামনে অ্যালিসন রিসকে। মাশা যে লড়াই নিয়ে বলেছেন, ‘‘প্রত্যেকটা ম্যাচই কঠিন। যত টুর্নামেন্ট এগোবে তত কঠিন হবে। আমি এক-একটা ম্যাচ ধরে এগোব। এর পরে আমার প্রতিদ্বন্দ্বী কে সেদিকে ফোকাস করব।’’ সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘‘গত কাল রিসকে দর্শকদের প্রচুর সমর্থন পেয়েছে দেখছিলাম। তাই আমি জানি পরের ম্যাচটা কঠিন হতে চলেছে আমার জন্য। তবে আমি আরও ভাল খেলতে চাই। নেটের ওপারে কে রয়েছে সেটা নিয়ে না ভেবে আরও উন্নতি করতে হবে আমাকে।’’

বিশ্বের এক নম্বর সিমোনা হালেপও জিতেছেন প্রথম রাউন্ডে। তিনি ৬-৪, ৬-১ হারান নিকোল গিবসকে।