মিনি ডার্বিতে শেষ মুহূর্তের গোলে হারতে হয়েছিল মোহনবাগানের কাছে। তবে, মোহনবাগান ম্যাচের দুঃস্বপ্ন ভুলে ফের এক বার স্বমহিমায় মহামেডান স্পোর্টিং। কলকাতা লিগে চ্যাম্পিয়ানশিপে টিকে থাকার লড়াইয়ে বুধবার রেলওয়ে এফসি-কে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিল সাদা-কালো ব্রিগেড।

মহামেডানের হাফ-ডজন গোলে জেতার নেপথ্যে নায়ক ক্যামরুনের স্ট্রাইকার দিপান্ডা ডিকা।

মরসুমের প্রথম বড় ম্যাচে হারের ফলে এ দিন যে কোনও মূল্যে জয়ের জন্য মুখিয়ে ছিল মহামেডান। যার প্রমাণ মেলে ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকেই। এ দিন মোহনবাগানের হয়ে ম্যাচের ২০ মিনিটে প্রথম গোলটি করেন ডিকা। ম্যাচের শুরুতেই গোল পেয়ে দুর্বল প্রতিপক্ষ রেলওয়ে এফসিকে চেপে ধরে বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের ছেলেরা। ওয়াল পাস থেকে থার্ড ম্যান মুভ, প্রায় সব রকমের বৈচিত্র্যই ছিল এ দিন মহামেডানের খেলায়। প্রথম গোলের ১০ মিনিটের মধ্যে দ্বিতীয় গোল করে মহামেডানকে দুই গোলের লিড এনে দেন মননদীপ সিংহ। ম্যাচের ২৭ মিনিটে ডিকার পাস থেকে গোল করে যান মননদীপ। ম্যাচের তৃতীয় গোলটি আসে রেল গোলরক্ষক রানার ভুল থেকে। থার্ড ম্যান মুভ থেকে পাওয়া বল রেলের আগোয়ান গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে লব করে জালে জড়িয়ে দেন ডিকা। প্রথমার্ধের শেষে খেলার ফল ছিল ৩-০।

আরও পড়ুন: মেসির জোড়া গোলে জয় দিয়ে শুরু বার্সেলোনার

আরও পড়ুন: শূন্যে ভাসার মন্ত্র শঙ্করকে শেখালেন তরুণ ‘স্যার’

যে আক্রমণাত্মক মানসিকতা নিয়ে প্রথমার্ধের খেলা শেষ করেছিল মহামেডান, ঠিক সেখান থেকেই দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু করেন প্রহ্লাদ রায়-ওগবা কালুরা। দ্বিতীয়ার্ধের ২ মিনিটে মহামেডানের হয়ে চতুর্থ গোলটি করে চলতি লিগে নিজের দ্বিতীয় হ্যাটট্রিকটি করেন ডিপান্ডা ডিকা। এই সময় মহামেডানের আক্রমণের ঝড়ে কার্যত দিশাহারা দেখায় রেলওয়ে এফসিকে। চাপ এতটাই ছিল যে, একের বিরুদ্ধে এক পরিস্থিতিতে বারবার মহামেডানের পায়ে বল জমা করে দিচ্ছিলেন অভিজিৎ-নাকিবরা। এরই সুযোগে ম্যাচের ৬১ মিনিটে গোল করে যান ইস্টবেঙ্গলের বাতিল প্রহ্লাদ রায়। কামরানের সঙ্গে পাস খেলে গোল করে যান প্রহ্লাদ।

এর পর বহু বার রেলের রক্ষণ ভাগে হানা দিলেও গোল মুখ খুলতে ব্যর্থ হয় মহামেডান। তবে, নাটক তখনও বাকি ছিল। ম্যাচ যখন অন্তিম লগ্নে তখন আস্তিন থেকে শেষ তাসটি বার করেন ডিপান্ডা ডিকা। দ্বিতীয়ার্ধের সংযুক্তি সময় রেলওয়ের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন ডিকা।