খেলাটা ছিল হকির ফাইনাল। কিন্তু হামার গাড়ি নিয়ে মহেন্দ্র সিংহ ধোনি স্টেডিয়ামে ঢুকতেই তাঁকে ঘিরে উদ্দীপনা দেখে মনে হল হকির মাঠে এবার তিনি ব্যাট হাতে ছক্কা হাঁকাতে নেমে পড়বেন।

রাঁচীর হাতিয়া রেলওয়ে হকি স্টেডিয়ামে আজ ছিল ৩৯তম অল ইন্ডিয়া রেলওয়ে উইমেন্স হকি চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। ফাইনালে মুখোমুখি সাউথ ইস্টার্ন রেলওয়ে অ্যাসোসিয়েশন বনাম সেন্ট্রাল রেলওয়ে। ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। খেলা শুরু হওয়ার বেশ কিছুক্ষণ আগেই চলে এসেছিলেন তিনি।

ঘরের ছেলেকে দেখার জন্য রাঁচীতে যে এখনও এমন উন্মাদনা হবে, তা ধোনিও বোধহয় বুঝতে পারেননি। ধোনিকে দেখার জন্য শুধু গ্যালারি থেকেই নয়, দেখা গেল স্টেডিয়ামের পেছনে একটা অশ্বত্থ গাছে চড়ে উঁকিঝুঁকি মারছেন ধোনির কয়েকজন মহিলা ভক্ত। ভিআইপি স্ট্যান্ডে ধোনি যেখানে বসেছিলেন সেখানে ধোনির সঙ্গে সেলফি তোলার হিড়িক ওঠে। সেলফি শিকারিদের ভিড় সামলাতে গিয়ে রাঁচী রেলওয়ে ডিভিশনের ডিআরএম বিজয় কুমার হোচট খেয়ে পড়ে যান। শেষ পর্যন্ত ধোনিই তাঁকে হাত বাড়িয়ে তুলে ফেলেন।

খেলা চলাকালীন ধোনি উৎসাহিতও করলেন খেলোয়াড়দের। ধোনিকে স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখতে দেখে উদ্দীপিত খেলোয়াড়রাও। দক্ষিণ পূর্ব রেলের হয়ে খেলছিলেন ভারতীয় মহিলা অলিম্পিক দলের খেলোয়াড় ঝাড়খণ্ডের নিক্কি প্রধান। খেলার শেষে নিক্কি বলেন, ‘‘এ রকম বড় মাপের একজন খেলোয়াড় মাঠে বসে আমাদের খেলা দেখছেন জানতে পেরে আমাদের ভাল খেলার উৎসাহ কয়েকগুণ বেড়ে গিয়েছিল। জান লড়িয়ে খেলেছি।’’

তবে নিক্কি প্রধানরা জান লড়িয়ে খেললেও শেষ পর্যন্ত ৪-০ গোলে জিতে যায় সেন্ট্রাল রেলওয়ে। ধোনি নিজের হাতে খেলোয়াড়দের পুরস্কৃত করেন। পুরস্কার নেওয়ার সময় আবার ধোনির সঙ্গে সেল্ফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন মহিলা হকি খেলোয়াড়রা।