মিতালি রাজ-দের ভারতীয় দল নতুন এক প্রেরণা পেয়ে গেল। তাঁর নাম? সচিন তেন্ডুলকর।

ইউনিসেফের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে সচিন তাঁর ফেসবুক পেজে ভারতীয় মেয়ে ক্রিকেট দলের সদস্যদের সম্পর্কে গল্প শোনাবেন। সচিন তাঁর ‘ঠাকুরমার ঝুলি’ সোমবারই শুরু করে দিয়েছেন ভারতীয় দলের অধিনায়ক মিতালি রাজ-কে নিয়ে।

এই বিশ্বকাপে ভারতকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মিতালি। সম্প্রতি ওয়ান ডে ক্রিকেটে ৬,০০০ রানের গণ্ডি পেরিয়ে তিনি সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়েছেন। মেয়েদের ওয়ান ডে ক্রিকেটে তিনিই প্রথম খেলোয়াড় যিনি ৬,০০০ রানের সীমানা পেরলেন।

সচিন তাঁর ফেসবুকে বলা কাহিনিতে জানাচ্ছেন, এমন রেকর্ড সৃষ্টিকারী মিতালিই ছোটবেলায় দেরিতে ঘুম থেকে উঠতেন। তাঁর বাবা সেনাবাহিনীতে ছিলেন। মেয়ে সকালে অনেক দেরিতে ঘুম থেকে উঠছে দেখেই দোরাই রাজ ক্রিকেট দাওয়াই প্রয়োগ করলেন। মিতালির ভাই যে ক্রিকেট কোচিং সেন্টারে যেত, সেখানে পাঠানো হল তাঁকেও।

আরও পড়ুন:

ক্রিকেটের পঞ্চকন্যা

সচিন লিখছেন, ‘আট বছর বয়সি সেই ছোট্ট মিতালি রাজকে যদি কেউ বলত, তুমি এক দিন বড় হয়ে বিশ্ব রেকর্ড করবে, তা হলে সে হয়তো বিশ্বাসই করত না। এটাই প্রমাণ করে যে, প্রতিভাকে বুঝতে পারা এবং সঠিক দিকে পরিচালনা করাটাই আসল ব্যাপার’। বিশ্ব ক্রিকেটে সচিন এবং মিতালি— দু’জনেই এখন ব্যাটিংয়ে পুরুষ ও মহিলাদের ওয়ান ডে-তে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী।

মিতালির সঙ্গে রবিবারেই দেখা হয়েছিল সচিনের। সে কথা উল্লেখ করে মাস্টার ব্লাস্টার লিখেছেন, ‘তোমার খেলা দেখতে পাওয়াটা সব সময়ই দারুণ একটা অভিজ্ঞতা। তুমি দুর্দান্ত এক জন খেলোয়াড়’।

গোটা মহিলা দলকেই সেমিফাইনালের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সচিন। ২০ জুলাই ভারতের সেমিফাইনাল ম্যাচ অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। মিতালি, ঝুলন-রা চান কাপ জিতে ফিরতে। আর তাঁদের সেই অভিযানে গলা ফাটাতে নেমে পড়লেন সচিন। শুধু তা-ই নয়, নারীশক্তিকে উজ্জীবিত করার ডাকও দিচ্ছেন তিনি। এবং বলছেন, নারীশক্তিকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য খেলাধুলোই আদর্শ মঞ্চ।