পুলিশ অফিসার অমিতাভ মালিকের মৃত্যু হয়েছে প্রায় দু’মাস আগে। ইতিমধ্যে তাঁর স্ত্রী বিউটিদেবীকে পুলিশেই চাকরি দিয়েছে রাজ্য সরকার। তিনি কাজে যোগ দিয়েছেন। এর মধ্যে সোমবার রাজ্যের পুলিশ-প্রধানের সঙ্গে দেখা করে নিজের ছোট ছেলের জন্য চাকরির আর্জি জানালেন অমিতাভের বাবা সোমেন মালিক। ডিজি সেই আর্জি মেনে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সোমেনবাবু।

মধ্যমগ্রামের মালিক পরিবারের বড় ছেলে অমিতাভ দার্জিলিঙে কর্মরত অবস্থায় মারা যান অক্টোবরে। সেই শোকের সময়টা পেরিয়ে তাঁর স্ত্রী চলতি মাসেই পুলিশের কাজে যোগ দিয়েছেন। অমিতাভের ভাই আকাশ মধ্যমগ্রাম বয়েজ হাইস্কুল থেকে আগামী বছর উচ্চ মাধ্যমিক দেবে। তার জন্য একটি চাকরির আবেদন জানাতে অমিতাভের বাবা-মা এ দিন প্রথমে ভবানী ভবন এবং পরে নবান্নে গিয়ে রাজ্য পুলিশের ডিজি সুরজিৎ করপুরকায়স্থের সঙ্গে দেখা করেন।

গত সপ্তাহের শেষ দিকে রাজ্য পুলিশের সদর কার্যালয় ভবানী ভবনে গিয়েছিলেন মালিক দম্পতি। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও তাঁরা কোনও পুলিশকর্তার সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। এ দিন অবশ্য তেমন হয়নি। সোমেনবাবু বলেন, ‘‘আমার জন্য নয়, আমি ছেলের চাকরির কথাই বলেছি। ওঁরাও চাইছেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চাকরিটা হোক। সুরজিৎবাবু জানান, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষে আকাশের বয়স ১৮ বছর হলেই ওকে শিক্ষা দফতরে চাকরি দেওয়া হবে।’’ সেই হিসেবে আগামী অগস্টের মধ্যে চাকরি হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সোমেনবাবু।

নবান্ন থেকে বেরোনোর মুখে ডিজি বলেন, ‘‘ওঁরা ভবানী ভবনে গিয়েছিলেন। একটু সমস্যা হয়েছিল। সে-কথা শুনে ওঁদের ডেকে পাঠাই। ওঁরা ধন্যবাদ জানাতে এসেছিলেন।’’