পাহাড় সমস্যা সমাধানে ত্রিপাক্ষিক বৈঠক ডাকা হবে কি না, তাই নিয়ে সবে কমিটি গড়েছে কেন্দ্র। এর মধ্যে সুর বদলাতে শুরু করেছে বিজেপিও। এত দিন বিমল গুরুঙ্গের পক্ষে সওয়াল করা বিজেপি নেতৃত্ব এ বার বিনয় তামাঙ্গকেও গুরুত্ব দিতে আরম্ভ করেছেন। কারণ, বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ জানিয়ে দিয়েছেন, পাহাড়ে বিনয়ই ভবিষ্যৎ। তাঁকে ত্রিপাক্ষিকে ডাকতেই হবে। তাই দল যদি বিনয়কে মেনে না নেয়, তা হলে সরকার ও দলের দু’রকম অবস্থান হয়ে যাবে।

রাজনাথের কাছ থেকে এই বার্তা পাওয়ার পরে পশ্চিমবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘‘বিনয় যদি আলোচনায় বসতে চান, তাতে আমাদের আপত্তি করার কী আছে?’’ দলের একাংশের বক্তব্য, ধীরে হলেও অবস্থান বদলাচ্ছে বিজেপি। এই ঘটনাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জয় হিসেবে দেখছে রাজনৈতিক শিবির। অনেকেই বলছেন, বিজেপিকে এক দিকে অবস্থান পরিবর্তনে যেমন বাধ্য করেছেন তৃণমূল নেত্রী, তেমনি এর ফলে পাহাড়ে আরও এক ঘরে হতে শুরু করেছেন সাংসদ সুরেন্দ্র সিংহ অহলুওয়ালিয়া।

ত্রিপাক্ষিক নিয়ে আশাবাদী বিনয়ও। এ দিন শিলিগুড়িতে তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, আপনি কি কেন্দ্রের কাছ থেকে ডাক পাওয়ার আশা করছেন? জবাবে বিনয় বলেন, ‘‘হ্যাঁ। ১০ অক্টোবর রাজনাথকে চিঠি দিয়েছি। আমি এখন জিটিএ চেয়ারম্যান ও দলের চিফ কো-অর্ডিনেটর। আমরাই যাব।’’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘‘ইউএপিএ-তে ফেরারকে (পড়ুন বিমল গুরুঙ্গ) নিশ্চয়ই কেন্দ্র ডাকবে না।’’ আর যদি গুরুঙ্গকে ডাকা হয়? বিনয় বলেন, ‘‘কেন্দ্র তো আইন জানে। ডাকবে বলে মনে হয় না।’’

আজ, শুক্রবার কলকাতায় যাচ্ছেন বিনয়। তিনি বলেন, ‘‘এ দিন বিকেলে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক। ১৫ তারিখ রাজ্যপাল সময় দিয়েছেন। পরদিন আবার সর্বদল বৈঠক।’’