বেলুড় মঠের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভিতরে রাখা হয়েছে তাঁর মরদেহ। ভক্তেরা মালা, শ্বেতপদ্ম নিয়ে সারা রাত শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। সোমবার সকাল থেকেই রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের পঞ্চদশ অধ্যক্ষ স্বামী আত্মস্থানন্দকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ভক্তদের ঢল নামে।

রবিবার বিকেল ৫টা ৩০ মিনিটে রামকৃষ্ণ মিশন সেবা প্রতিষ্ঠান হাসপাতালে প্রয়াত হন তিনি। বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। আজ, সোমবার রাত সাড়ে ন’টায় বেলুড় মঠের গঙ্গাতীরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর অন্তিম সংস্কার সম্পন্ন হয়। মাদার টেরিজার পরে এই প্রথম রামকৃষ্ণ মিশনের মতো কোনও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় অন্তিম সংস্কার করা হয়।

আরও পড়ুন: আমৃত্যু মানুষের জন্য কাজ করে গেলেন

 

রামকৃষ্ণ মিশনের রীতি অনুযায়ী সঙ্গীতের মাধ্যমে তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়।

স্বামী আত্মস্থানন্দের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

গান স্যালুটের পর নীরবতা পালন করা হয়।

সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয় গান স্যালুট।

পুণ্যস্নানের পরে নতুন বস্ত্র পরিয়ে দেহ নিয়ে যাওয়া হয় বাসভবনের দিকে।

সারদা মায়ের ঘাটে  সম্পন্ন হয় স্নান প্রক্রিয়া।

বৃষ্টির মধ্যেই স্বামীজির মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়  রামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের মন্দিরের দিকে।

শেষ শ্রদ্ধা জানাতে বেলুর মঠে উপস্থিত হয়েছেন বহু ভক্ত ও গুণমুগ্ধরা। ছবি: দীপঙ্কর মজুমদার।

শুরু হয় অন্তিম যাত্রা।

রাত ৯টা ৪৫-এ অন্ত্যেষ্টি।

 রাত ৯টা ২৫-এ বাসভবনে যাত্রা।

স্বামী বিবেকানন্দের মন্দিরে নিয়ে যাওয়া হবে মরদেহ।

অন্তিম দর্শনের জন্য  মায়ের মন্দিরের  সামনে রাখা হবে স্বামী আত্মস্থানন্দের মরদেহ।

 রাত ৯টা থেকে ৯টা ১৫তে মায়ের ঘাটে পুণ্যস্নান।

  রাত ৯টা ৫-এ স্বামী ব্রহ্মানন্দ মন্দির এবং মা সারদার মন্দিরে যাত্রা।

বেলুড় মঠে ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায়।

 রাত ৮টা ২৫ থেকে ৯টায় পুরনো মন্দিরে যাত্রা।

• রাত ৮টা ২০তে রামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের মন্দিরের সামনে নিয়ে যাওয়া হবে স্বামীজিকে।

 রাত ৮টা ১০-এ স্বামীজির দেহ নিয়ে মঠের ভিতরেই শোভাযাত্রা শুরু হবে।

• কান্নায় ভেঙে পড়েন বহু ভক্ত।

  বিভিন্ন মঠ থেকে মহারাজেরা হাজির হতে শুরু করেন।

•  অন্তিম সংস্কারের আয়োজন শুরু হয়।

প্রধানমন্ত্রীর তরফে আত্মস্থানন্দজিকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এলেন হাওড়ার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী।

 গতকাল থেকে বেশ কয়েকবার প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে মঠে ফোন করে স্বামী আত্মস্থানন্দের অন্তিম সংস্কার নিয়ে খোঁজ নেওয়া হয়।

 বহু মানুষ শেষবারের জন্য স্বামী আত্মস্থানন্দকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে বেলুড় মঠে লাইনে দাঁড়ান।

 স্বামীজিকে শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হন ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায়।

• রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের পাশাপাশি অন্যান্য রাজ্য থেকেও বেলুড় মঠে এসে উপস্থিত হন ভক্তরা।

 শ্রদ্ধা জানাতে আসেন মুকুল রায়। 

 শুরু হয় চিতা সাজানোর প্রক্রিয়া। আনা হয় বহুমূল্য চন্দন কাঠ।

• ফুল হাতে ভক্তদের লাইন বেলুড় মঠের প্রবেশ দ্বার ছাড়িয়ে যায়।

 বেলুড় মঠে আসেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্ল।

 স্বামীজিকে শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত হন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায়।

 বেলুড় মঠের সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে শুরু হয় উপসনা।

•  নেদারল্যান্ডস রওনা হওয়ার আগে কলকাতা বিমানবন্দরে স্বামী আত্মস্থানন্দের মৃত্যুতে ফের শোক প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

•  মহারাজকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সোমবার ভোর থেকেই বেলুড় মঠে অগণিত ভক্তের ঢল।

ছবি: দীপঙ্কর মজুমদার।