আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে রাজ্যের ৫২টি থানার দায়িত্ব সাব-ইনস্পেক্টরদের থেকে ইনস্পেক্টরদের হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নবান্ন। এ ব্যাপারে পুলিশের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র দফতরে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল। প্রশাসন সূত্রের খবর, সেই প্রস্তাবে মুখ্যমন্ত্রী সম্মতি দেওয়ার পর কিছু পদ্ধতিগত কাজকর্ম বাকি রয়েছে। পুলিশ সূত্রের খবর, জেলা পুলিশের অধীনে বহু থানা সাব-ইনস্পেক্টরদের (ওসি) অধীনে রয়েছে। সে সব থানায় লোকবলও কম। এই থানাগুলির মাথায় ইনস্পেক্টরদের (আইসি) বসানো হলে এসআই-সহ কর্মী-অফিসারের সংখ্যাও বাড়ানো হবে।

নবান্নের যুক্তি, গ্রামাঞ্চলও যে ভাবে দ্রুত নগরায়ণের পথে হাঁটছে, তাতে আরও পুলিশি নজরদারি প্রয়োজন। স্বরাষ্ট্র দফতর জানিয়েছে, সুন্দরবন পুলিশ জেলা, বারুইপুর পুলিশ জেলা, নদিয়া, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, জলপাইগুড়ি, উত্তর দিনাজপুর এবং মালদহ জেলার প্রতিটিতে ৪টি করে থানার মাথা বদলের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছ। উত্তর ২৪ পরগনা, মুর্শিদাবাদ, পূর্ব মেদিনীপুর এবং দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় ৩টি করে থানাকে আইসি স্তরে উন্নীত করা হবে। নবগঠিত জেলা পূর্ব বর্ধমান জেলার পাঁচটি থানা এবং গ্রামীণ হাওড়ার দু’টি থানাও এর আওতায় আসবে। তবে পুলিশের একাংশ বলছেন, যা-ই হোক পরিকাঠামো তো একই থাকছে। তাই এ ক্ষেত্রে কাজের কতটা সুবিধা হবে— তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।