তৃণমূল বিধায়ক মহুয়া মৈত্রের উদ্দেশে ‘অশালীন’ মন্তব্যের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় অন্তত ছ’সপ্তাহের জন্য স্বস্তি পেলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। ওই সময় পর্যন্ত অভিযোগের তদন্ত করা বা বাবুলের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না বলে সোমবার রায় দিল হাইকোর্ট।

গত জানুয়ারি মাসে একটি টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠানে বাবুল ‘মহুয়া তুমি কি মহুয়া খেয়ে আছো?’ মন্তব্য করে তাঁর মর্যাদাহানি করেছেন বলে আলিপুর থানায় অভিযোগ করেছিলেন মহুয়া। তার পরিপ্রেক্ষিতে বাবুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি হয়। সেই মামলা খারিজের আবেদন জানিয়ে হাইকোর্টের শরণাপন্ন হন বাবুল।

তবে বাবুলকে আপাতত রেহাই দিলেও বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী তাঁকে ভর্ৎসনাও করেন। বিচারপতি বলেন, ‘‘এই ধরনের ভাষা প্রয়োগ মানহানিকর।’’

আরও পড়ুন: খামতি শুধরে নেওয়া হবে, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বললেন অ্যাপোলো-কর্ত্রী

এ দিন বাবুলের হয়ে সওয়াল করতে উঠে আইনজীবী প্রদীপ ঘোষ জানান, টিভি চ্যানেলের বিতর্কে তাঁর মক্কেল যে মন্তব্য করেছিলেন, সে জন্য গুরুতর একটি ধারায় মামলা দায়ের হতে পারে না। তা ছাড়া মহুয়া মৈত্রের অমর্যাদা করার উদ্দেশ্যও বাবুলের ছিল না।

এ কথা শুনেই বিচারপতি বলেন, ‘‘এটা কী? এক জন সাংসদ হিসেবে তিনি কি দায়িত্বজ্ঞানপূর্ণ আচরণ করেছেন? জনপ্রতিনিধি হিসেবে কোনও মহিলার উদ্দেশে তিনি কি এই ধরনের কুরুচিকর মন্তব্য করতে পারেন? তাঁর আচরণ দুঃখজনক।’’ পরে বাবুলের অন্য আইনজীবী সন্দীপন গঙ্গোপাধ্যায় জানান, বিচারপতি আদালতে যা বলেছেন, তা তাঁর একান্তই ব্যক্তিগত মন্তব্য। এই কথাগুলি মূল রায়ের অংশ নয়। একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আদালত অন্তবর্তীকালীন স্থগিতাদেশ দেওয়ায় আমরা খুশি।’’ তিনি আরও জানান, বাবুল সুপ্রিয় বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অভিযোগ তোলায় মহুয়ার বিরুদ্ধে মানহানির মামলার নোটিস পাঠানো হয়েছে।