কড়া শর্ত আরোপ করে মেলা আটকানো উচিত নয়, পরামর্শ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। তার পরেও আসানসোলে বাবুল সুপ্রিয়কে সাংসদ মেলা করার অনুমতি দিল না পুরসভা। সংশ্লিষ্ট মাঠটি এ ধরনের মেলার উপযুক্ত নয় দাবি করে বুধবার আবেদন বাতিল করেন মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ফের কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে আয়োজক সংস্থা।

এ দিন বিকেলে পুরসভার সিদ্ধান্ত শোনার পরেই বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল বলেন, ‘‘রেলের মাঠে মেলা করছি। তাদের ছাড়পত্র নিয়েছি। পুর কর্তৃপক্ষের অনুমতি দেওয়ার এক্তিয়ার নেই। ওই মাঠেই মেলা করব।’’ সন্ধ্যায় মেলার মাঠে পৌঁছে অবশ্য তিনি জানান, আজ, বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে শুনানির পরেই পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করবেন তাঁরা।

কেন্দ্রের নানা প্রকল্পের প্রচারে আসানসোল রেল স্টেডিয়ামে ১৩-১৫ জানুয়ারি ওই মেলা করতে চান বাবুল। কিন্তু সোমবার পুর কর্তৃপক্ষ দাবি করেন, ওই মাঠে নিকাশির উপযুক্ত ব্যবস্থা নেই। ঢোকা-বেরনোর পথ একটিই, তাই বহু লোক জড়ো হলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া, পার্কিংয়ের জায়গার অভাব-সহ নানা কারণ দেখিয়ে মেলার অনুমতির আবেদন বাতিল করে তৃণমূল পরিচালিত পুরসভা।

আয়োজক সংস্থা এর বিরোধিতা করে হাইকোর্টে যায়। মঙ্গলবার বিচারপতি হরিশ টন্ডন শুনানিতে পুরসভার আপত্তির কারণগুলির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। বুধবার ফের মাঠ পরিদর্শন করে অনুমতির বিষয়টি মেয়রকে পুনর্বিবেচনার নির্দেশ দেন তিনি।

এ দিন সকালে দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ ও পুলিশ কর্তাদের নিয়ে মেলার মাঠ ঘুরে দেখেন মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি। প্রায় ৪৫ মিনিট পরিদর্শনের পরে তিনি বলেন, ‘‘আদালত বিবেচনার নির্দেশ দিয়েছে। বাবুল সুপ্রিয়ও আমাকে ফোন করে অনুরোধ করেছেন। বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’’

এর পরে বিকেলে মেয়র ঘোষণা করেন, নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা ভেবে মেলার অনুমতি দেওয়া যাচ্ছে না। তাঁর ব্যাখ্যা, চার দিকে উঁচু পাঁচিলে ঘেরা মাঠে মেলার আয়োজন হয়েছে। মেলায় নামী শিল্পীদের অনুষ্ঠান করতে আসার কথা। প্রচুর মানুষ ভিড় জমাবেন। ফলে, দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকছে। তিনি বলেন, ‘‘আমরাও চাই, মেলা হোক। তবে ওই মাঠ এ রকম মেলার উপযোগী নয়। কোনও খোলা মাঠে আয়োজন করা হোক, অনুমতি দেব।’’ মেলার আয়োজক সংস্থার আইনজীবী লোকনাথ চট্টোপাধ্যায় জানান, পুরসভা
অনুমতি না দেওয়ায় হাইকোর্টের বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দারের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন করেছেন তাঁরা। আজ, বৃহস্পতিবার তার শুনানি হতে পারে।

ঘটনাচক্রে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাতেই ওই মেলার উদ্বোধন হওয়ার কথা। বাবুল এ দিন আসানসোলে পৌঁছে বলেন, ‘‘মেয়রকে ফোন করে সবাই মিলে মেলা সফল করার আহ্বান জানিয়েছিলাম। ওঁরা কেন এমন করছেন বুঝছি না!’’ মাঠে ভিড় হলে সমস্যা হওয়ার যে যুক্তি পুরসভা দিয়েছে সে প্রসঙ্গে বাবুলের মন্তব্য, ‘‘ভিড় হওয়া মানেই সেটা বিশৃঙ্খল হবে, এমন মনে করার কারণ নেই।’’