সারদা তদন্তে এ রাজ্যের পুলিশ তথ্যপ্রমাণ লোপাট করেছে বলে বিভিন্ন মহল থেকে আগেই অভিযোগ উঠেছিল। এ বার রাজ্য পুলিশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে লিখিত ভাবে সেই অভিযোগ জানাল সিবিআই।

মাসখানেক আগে শীর্ষ আদালতকে লিখিত ভাবে সিবিআই জানিয়েছে, সারদা-কাণ্ডে রাজ্য পুলিশের তদন্তকারী অফিসার এবং তদন্তের দায়িত্বে থাকা সিনিয়র অফিসারেরা নিজেদের কাজের বাইরে গিয়ে, অভিযুক্তদের সঙ্গে যোগসাজস করে তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করেছে। এই বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানতে সম্প্রতি সারদা কাণ্ডে রাজ্য পুলিশের তদন্তকারী অফিসারকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল।

আরও পড়ুন: বিভীষণদের নকশা ধরা পড়েছে: শুভেন্দু

শীর্ষ আদালতে সিবিআই রাজ্য পুলিশের বিরুদ্ধে আরও একটি গুরুতর অভিযোগ তুলেছে। সিবিআই লিখিত আকারে জানিয়েছে— সারদার দুই প্রধান অভিযুক্ত সুদীপ্ত সেন ও দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের মোবাইল ফোনের ‘কল রেকর্ডস’ এখনও তাদের দেয়নি পুলিশ। অভিযোগ, ২০১৪ সালের ৯ মে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সারদা কেলেঙ্কারির তদন্তে নামার পরে রাজ্য পুলিশের কাছ থেকে ওই ‘কল ডিটেলস’ চাওয়া হয়। কাদের সঙ্গে সুদীপ্ত ও দেবযানীর যোগাযোগ ছিল, তা জানতে ওই ‘কল ডিটেলস’ হাতে পাওয়াটা খুবই জরুরি। শীর্ষ আদালতে সিবিআইয়ের অভিযোগ, বার বার চেয়ে পাঠানো সত্ত্বেও সেই ‘কল ডিটেলস’ অদ্যাবধি সিবিআইয়ের হাতে তুলে দেয়নি রাজ্য পুলিশ। 

নালিশনামা

• সারদা মামলায় অভিযুক্তদের সঙ্গে যোগসাজশে তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করেছে রাজ্য পুলিশ

• সুদীপ্ত সেন ও দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের মোবাইলের ‘কল ডিটেলস’ বারে বারে চেয়েও মেলেনি

• পুলিশি তদন্তের দায়িত্বে থাকা রাজীব কুমারকেবারবার ডাকা হলেও তিনি আসেননি

• উল্টে রোজ ভ্যালি মামলায় সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসারকে থানায় ডেকে পাঠিয়ে তদন্ত নিয়ে প্রশ্ন

সিবিআইয়ের অভিযোগ, তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করার বিষয়ে তদন্তে নেমে রাজ্য পুলিশের তদন্তকারী অফিসারকে ডেকে কথা বলার পরে ওই তদন্তের দায়িত্বে থাকা পুলিশ অফিসার রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করেন তদন্তকারীরা। রাজীব কুমারকে দু’বার ডেকে পাঠানোর পরেও তিনি আসেননি। অভিযোগ, উল্টে রোজ ভ্যালি কাণ্ডে সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসারকে একটি হোটেল ভাঙচুরের ঘটনায় ডেকে পাঠিয়ে জেরা করেন কলকাতা পুলিশের এক অধঃস্তন অফিসার। অভিযোগ, সেই সময়ে সিবিআই অফিসারের কাছে তদন্তের খুঁটিনাটি জানতে চাওয়া হয়। ওই অফিসার তদন্তের স্বার্থে মুখ খুলতে না চাইলে, সিবিআইয়ের স্পেশাল ডিরেক্টরকে ই-মেল করে জবাবদিহিও চাওয়া হয়। তার পরেই ২ ডিসেম্বর সিবিআই সুপ্রিম কোর্টে এই লিখিত আবেদন জানায়।

তথ্যপ্রমাণ নষ্ট বা সুদীপ্ত-দেবযানীর ‘কল ডিটেলস’ সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয়ে রাজীব কুমারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। মোবাইলে পাঠানো বার্তারও জবাব দেননি।