শীতকাল মানেই রঙের খেলা এবং স্টাইল। সোজা ভাবে বললে কুল সিজন অ্যান্ড হট স্টাইল। এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ ভাবে একমত অভিনেত্রী ঋতাভরী চক্রবর্তী। দিনদুপুরে স্টাইলিশ ম্যাজেন্টা কিংবা গর্জাস রেড, অন্য যে কোনও সময় পরতে গেলে, ভাবতে বেশ কিছুটা সময় নেবেন। কিন্তু সময়টা যদি হয় ডিসেম্বর কিংবা জানুয়ারি, তা হলে আর যে ব্যাপারেই হোক, ঠান্ডা ওয়েদারে একটু উষ্ণতা বাড়াতে রং নিয়ে আপনাকে ভাবতে হবে না। তবে এই শীতের মরসুমে অবশ্য রঙের পসরার চেয়ে কালো এবং সাদা কিংবা মোনোক্রোম অনেক বেশি ইন অর্থাৎ এক রং কিংবা একটি রঙের নানা শেডের বাহার।

তবে এখন কিন্তু শীতের ফ্যাশনও কমফর্ট ক্লোদিংয়ের দিকেই বেশি ঝুঁকেছে। লং কোটস, বুটস, জ্যাকেট... এগুলো তো ফ্যাশনে ছিল, আছেও। এ বার শীতে ভীষণ ভাবে ট্রেন্ডি ওভারসাইজড সোয়েটার, স্কার্ট, হুড। আমাদের এ বারের মডেল অভিনেত্রী ঋতাভরী চক্রবর্তী। ব্যক্তিগত জীবনেও যিনি খুবই স্টাইলিশ এবং ট্রেন্ডি। উইন্টার ওয়ার্ড্রোব নিয়েও ভীষণ খুঁতখুঁতে। ‘‘এখন স্কার্ট যেহেতু খুব ইন, তাই আপনি শীতেও স্কার্ট বা শর্ট কিছু পরতে পারেন, কিন্তু তা হলে নি-লেংথ বুটস পরে নিন বা স্টকিংস। আমার কাছে শীতকালে কমফর্ট ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। ওভারসাইজড সোয়েটার, ওভারকোট... এগুলো আমি পরতে ভীষণ পছন্দ করি। যেহেতু ট্রাভেল করি প্রচুর এবং এমন এমন জায়গায় যাই, যেখানে খুব শীত, তাই আই লভ কালেক্টিং উইন্টার গারমেন্টস ফ্রম এভরিহোয়্যার। আমি বিদেশেও দেখেছি, ওখানে যেহেতু বছরের বেশির ভাগ সময়ই ঠান্ডা, কিন্তু ওরা যে পুলওভার, ক্যাপ বা জ্যাকেটটা পরছে, সবই খুব ফ্যাশনেবল। খুবই ট্রেন্ডি। আমিও সেটাই চেষ্টা করি।’’

আরও পড়ুন: ‘ফ্লোরে প্রথম অনুষ্কাকে দেখে সংলাপ বলতে পারিনি’

ঋতাভরীর শীতের পোশাকের বাহার রীতিমতো ঈর্ষণীয়। কিন্তু তার যত্নও নেহাত হেলাফেলায় নয়। তাই পাঠকদের কী টিপ্‌স দেবেন? ‘‘ওভারকোটের সত্যিই যত্ন করতে হয়। এবং এটি কোটের ব্যাগের মধ্যে রাখাটাই সেরা উপায়। আর আমাদের এখানে তো ওভারকোটের ব্যবহার খুব বেশি নয়। কোথাও বেড়াতে গেলে বা খুব শীত পড়লে তখনই বের করতে হয়। আবার ভেলভেট কোট সোয়েড কোট, ব্লেজার, লেদার জ্যাকেট... এগুলো অবশ্যই ঝুলিয়ে রাখা উচিত। আমাদের একটা প্রবণতা আছে, ভাঁজ করে রাখার। সোয়েটার আপনি ভাঁজ করে আলমারিতে বা সুটকেসে রাখতে পারেন। কিন্তু ব্লেজার, কোট, ফর্মাল কোট সব সময় ঝুলিয়ে রাখতে হবে,’’ জানালেন অভিনেত্রী।    

ছবি: দেবর্ষি সরকার; মেকআপ: মৈনাক পোশাক: এইচ অ্যান্ড এম