লক্ষ্মণভোগ
(কথিত) ইংরেজবাজারের চণ্ডীপুরের বাসিন্দা লক্ষ্মণ নামে এক আমচাষি একটি আম গাছ বোনেন। সেই গাছে প্রচুর আম ফলে। খুবই সুস্বাদু খেতে। সেই থেকে লক্ষ্মণভোগ আমের উৎপত্তি। কাঁচা অবস্থায় প্রচণ্ড টক। পাকলে তেমনই মিষ্টি। আমের খোসা খুব পাতলা হয়।

 

আলতাপাটি
আমটি লালচে রঙের হওয়ায় একে আলতাপাটি বা সিঁদুরে আম বলে। আমগুলি লম্বাটে হয়। আমের উপরের অংশটি লাল হয়ে থাকে। স্বাদ তেমন মিষ্টি নয়।
 

 

গোপালভোগ
মালদহে বিখ্যাত। খুবই মিষ্টি। (কথিত) ইংরেজবাজারে নরহাট্টার গোপাল নামে এক আমচাষি আম গাছ বুনে প্রচুর ফল ফলান। তাঁর নামেই আমের নামকরণ হয়। গোল ধরনের আম। এটিও কাঁচা অবস্থায় প্রচণ্ড টক হয়। পাকলে মধুর মতো মিষ্টি। এর একটা মিষ্টি গন্ধ আছে।

 

গুটি
আমের আঁটি থেকে এই আম ফলানো হয়। বিভিন্ন প্রজাতির হতে পারে। আকারে ছোট হয় এই আম। কাঁচা অবস্থায় টক। পাকলে মিষ্টি। খোসা খুবই মোটা।

 

আশ্বিনা
এই আম গরম কালে কাঁচা অবস্থায় থাকে। খুবই টক স্বাদ তখন। আশ্বিন মাসে পাকে আমগুলি। তাই এর নাম আশ্বিনা। সেই সময় এর স্বাদ মিষ্টি হয়ে যায়।

 

ফজলি
(কথিত) ১৮০০ খ্রিস্টাব্দে মালদহের কালেক্টর র‌্যাভেন সাহেব ঘোড়ার গাড়ি চেপে গৌড় যাচ্ছিলেন। পথে তাঁর জল তেষ্টা মেটানোর জন্য গ্রামের এক মহিলার কাছে জল খেতে চান। ফজলু বিবি নামে সেই মহিলা তাঁকে জলের বদলে একটি আম খেতে দেন। আম খেয়ে কালেক্টর সাহেব ইংরেজিতে তাঁকে আমের নাম জিজ্ঞেস করেন। বুঝতে না পেরে ওই মহিলা তাঁর নিজের নাম বলে বসেন। সেই থেকে ওই আমের নাম হয়ে যায় ফজলি। খুব বড়, লম্বা দেখতে আম। ৫০০-৭০০ গ্রাম ওজন হয়। স্বাদ মিষ্টি। একটা গোটা আম খেয়ে ওঠাই কষ্টকর।