স্বামীকে খুনের দায়ে যাবজ্জীবন

প্রতীকী চিত্র।

স্বামীর গোপনাঙ্গ থেঁতলে তাঁকে খুনের দায়ে স্ত্রী এবং তার প্রেমিককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিলেন বিচারক।
২০১২ সালের ৩ জুলাই রাতে আরামবাগের চুনাইট গ্রামের ধীরেন মালিক (৫০) নামে ওই ব্যক্তিকে খুনের ঘটনায় সাজাপ্রাপ্ত মিনা মালিক এবং তার প্রেমিক শেখ মোকাসিনকে বৃহস্পতিবার এই সাজা শোনান আরামবাগ আদালতের অতিরিক্ত দায়রা বিচারক সুরথেশ্বর মণ্ডল। 
সরকার পক্ষের আইনজীবী নবকুমার মজুমদার বলেন, “এই মামলায় মোট ১৩ জনের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে অপরাধীর যাবজ্জীবনের সাজা এবং ২ হাজার টাকা জরিমানা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে আরও ১ বছর জেলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’’
পুলিশ ও আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, মাছ ধরতে গিয়ে জেলেদের দলে কাজ করার সময় ধীরেন এবং মোকাসিনের আলাপ হয়। সেই সূত্রেই ধীরেনের বাড়িতে যাতায়াত এবং মিনার সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে মোকসিন। ঘটনার দিন রাতে নিজের ঘরে স্ত্রী এবং মোকাসিনকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ধীরেন প্রতিবাদ করেন। মিনা এবং মোকাসিন পাথর দিয়ে ধীরেনের কান ও গোপনাঙ্গ থেঁতলে খুন করে পুকুরে ফেলে দেয়। পরের দিন স্বামীর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে ধীরেনের ভাইদের খবর দেয় মিনা। মিনার বক্তব্যে অসঙ্গতি পেয়ে তাকে জেরা করেন প্রতিবেশীরা। সেই সময় খুনের কথা স্বীকার করে মিনা। মৃতের ভাই দশরথের অভিযোগের ভিত্তিতে রাতেই মিনাকে গ্রেফতার 
করা হয়। গ্রেফতারের পর জামিন পায় মিনা। আর ঘটনার মাস খানেক পর আত্মসমর্পণ করে মোকাসিনেরও জামিন হয়। ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে শুনানির পর দুই অভিযুক্তকে দোষী সাব্যস্ত করে জেল হেফাজতে নেওয়া হয়েছিল।