গয়নার লোভে অন্তঃসত্ত্বা প্রতিবেশীকে শ্বাসরোধ করে খুন, নয়ডায় গ্রেফতার দম্পতি

প্রতীকী ছবি।

গয়নার লোভে অন্তঃসত্ত্বা প্রতিবেশীকে খুন করল এক দম্পতি। খুন করার পর একটি স্যুটকেসে মৃতদেহটি ভরে গাজিয়াবাদের কাছে রাস্তার ধারে ফেলে দেয় তারা। ঘটনাটি শুক্রবারের। দম্পতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ধৃত দম্পতির নাম সৌরভ দিবাকর এবং রিতু। উত্তরপ্রদেশের গ্রেটার নয়ডা এলাকার বিসরাখের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তারা। খুন হওয়া  মহিলার নাম মালা। তিনিও একই বাড়িতে ভাড়া থাকতেন বলে জানিয়েছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

গত বৃহস্পতিবার মালার বাড়িতে কিছু আত্মীয়স্বজন আসেন। কিছুদিন আগেই বিয়ে হয়েছে মালার। তাই তিনি সবাইকে উৎসাহের সঙ্গে নিজের গয়নাগাটি ও দামি জামাকাপড় দেখাচ্ছিলেন। বাকিদের সঙ্গে সেখানে হাজির ছিল প্রতিবেশী রিতুও। সব দেখে চুপচাপ বাড়ি ফিরে আসে রিতু।

বাড়িতে ফিরে স্বামী সৌরভকে প্রতিবেশীর গয়না নিয়ে সবকিছু জানায় সে। শুরু হয় পরিকল্পনা। পরের দিনই নিজেদের বাড়িতে মালাকে নিমন্ত্রণ করে ওই দম্পতি। মালার স্বামী তখন কাজের জন্য বাইরে।  বাড়িতে ডেকে মালাকে শ্বাসরোধ করে খুন করে ভরে দেওয়া হয় সেই বাক্সেই, যে বাক্সে রাখা ছিল তাঁর গয়না ও জামাকাপড়। বের করে নেওয়া হয় গয়না, জামাকাপড় আর মোবাইল ফোন।

আরও পড়ুন: তেল-সমস্যা সমাধানের দায় এড়িয়ে গেল কেন্দ্র

শুক্রবার রাত ন’টা নাগাদ এই খুন করা হয়। তার পরই মালাকে বাক্সে ভরে গাজিয়াবাদের উদ্দেশে রওনা দেয় দিবাকর আর রিতু। ইন্দিরাপুরমের কাছে স্যুটকেসটি ছুঁড়ে ফেলে দেয় তারা। কিন্তু নিজেদের বাড়িতে না ফিরে আশ্রয় নেয় এক মামার বাড়িতে।

আরও পড়ুন: অ্যাম্বুল্যান্স আটকে প্রাণ গেল শিশুর

পরের দিনই বিসরাখ থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করে মালার বাড়ির লোকজন। একই দিনে গাজিয়াবাদে পাওয়া যায় বাক্সবন্দী একটি মৃতদেহ। প্রাথমিক তদন্তে জানা যায় বাক্সবন্দি মৃতদেহটিই মালার। পণের জন্য মালাকে খুন করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজন, পুলিশকে এই সন্দেহের কথা জানায় মালার বাপের বাড়ির লোকজন। কিন্তু তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, খুনের সময় মালার স্বামী ছিল তাঁর অফিসে। তাই স্বামীর ওপর থেকে সন্দেহ চলে যায়। একই সঙ্গে পুলিশ জানতে পারে, প্রতিবেশী দম্পতি শুক্রবার রাত থেকে বাড়ি ফেরেনি। এর পরই রিতু আর সৌরভের খোঁজে নামে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। এর পরই দম্পতিকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে মেলে চুরি যাওয়া জামাকাপড়, গয়না আর মালার মোবাইল ফোন। সোমবারই সাংবাদিক বৈঠকে এই রোমহর্ষক খুনের ঘটনা সামনে এনেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

(রাজনীতি, অর্থনীতি, ক্রাইম - দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘটে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)