সাহিত্যিকের চরিত্রে অম্বরীশ

‘ভাগশেষ’-এর একটি দৃশ্যে অম্বরীশ ও সৌমিত্র

থিয়েটারের গান গাইতেন, অভিনয় করতেন অম্বরীশ ভট্টাচার্য। ‘রাজা গজা’ কমেডি সিরিয়াল হিট করায় রাজা ওরফে অম্বরীশের নামের সঙ্গে কমেডিয়ান তকমা জুড়ে যায়। তাই  হয়তো তিনি বলেই ফেললেন, ‘‘অনেক দিন পর একটি সিরিয়াস চরিত্রে অভিনয় করছি।’’ ব্যাপারটা কী? মনোবিদ এবং সঙ্গীতশিল্পী রেমা বসুর ডেবিউ ছবি ‘ভাগশেষ’-এ একজন সাহিত্যেকের চরিত্রে অভিনয় করছেন অম্বরীশ। তিনি ছাড়া এই ছবিতে আছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, মালবিকা সেন, প্রিয়ঙ্কা সরকার, কৌশিক রায় প্রমুখ। একজন লেখক যিনি যৌবন থেকে লিখলেও তাঁর বই সে রকম জনপ্রিয়তা পায় না। যদিও তাঁর লেখা ‘ভাগশেষ’ বেস্ট সেলার হয় মধ্য বয়সে এসে। এই সাহিত্যিকের বর্ণনাতেই দর্শক দেখতে পাবেন ছবিটি, অর্থাৎ সাহিত্যিকই ন্যারেটর। ‘‘সাহিত্যিক ও তাঁকে ঘিরে থাকা কিছু মানুষের গল্প। সেই মানুষগুলির জীবনের বিভিন্ন দিক। ছবিটি নিয়ে রেমা কোনও এক্সপেরিমেন্ট করেননি। সোজাসাপটা বলে গিয়েছেন। হয়তো ও মনোবিদ বলেই একটা মনস্তাত্ত্বিক ব্যাখ্যাও আছে ছবিতে। খোলাখুলি হলেও  ছবিতে সাসপেন্স আছে যথেষ্ট। ছবিটি দেখতে-দেখতে দর্শক যা অনুমান করবেন, সেটা কি আদৌ হবে? শেষ সংলাপে গিয়ে সাসপেন্স উন্মোচন হয় এমন একটি ছবিতে কাজ করতে পেরে ভাল লাগছে। সৌমিত্রবাবু অসাধারণ অভিনয় করেছেন। জোর দিয়ে বলতে পারি এই ছবিটি ওঁর জীবনের অন্যতম সেরা ছবি হতে চলেছে। পুরনো বাংলা ছবিতে যেমন গল্প বলা অর্থাৎ স্টোরি টেলিং-এর একটা ফিল থাকত, এই ছবিতেও সেই ফিল পাবেন দর্শক,’’ বললেন অম্বরীশ। বোঝাই যাচ্ছে, ছবিটি নিয়ে বেশ আশাবাদী পরদার এই সাহিত্যিক। ‘ভাগশেষ’ গল্পটি লিখেছেন রেমা। ছবির টাইটেল সং লিখেছেন ও সুর দিয়েছেন তিনি। গেয়েছেন জয়তী চক্রবর্তী ও শুভমিতা। ছবিতে ব্যবহৃত বাকি গানগুলি লিখেছেন এবং সুর দিয়েছেন আচার্য জয়ন্ত বসু। তিনি আবার সম্পর্কে পরিচালকের বাবা। ‘ভাগশেষ’-এর শ্যুটিং শেষ। প্রথম দেখানো হবে কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে, তার পর মুক্তি পাবে প্রেক্ষাগৃহে।