Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

বিএনপির পাশে চিন, অভিযোগ হাসিনার দলের

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ০৯ নভেম্বর ২০১৮ ০০:২০
শেখ হাসিনা এবং খালেদা জিয়া। — ফাইল চিত্র।

শেখ হাসিনা এবং খালেদা জিয়া। — ফাইল চিত্র।

ভোটের ঘণ্টা বেজে যাওয়া বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় এ বার মাথা গলাচ্ছে বেজিং। ঢাকার রাজনৈতিক সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী, সে দেশের বিরোধী দল বিএনপি-কে বিভিন্ন ভাবে সহায়তার জন্য ঝাঁপি খুলে দিয়েছে চিন। বিপুল অঙ্কের অর্থ সাহায্য করা হচ্ছে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের দলকে— বিভিন্ন সূত্রে এমন খবরও মিলেছে।

বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ না খুললেও সতর্ক নজর রাখছে হাসিনা সরকার এবং আওয়ামি লিগ। সূত্রের মতে, এখনই বিএনপি-কে যে কোনও প্রকারে তখতে বসানোটা চিনের লক্ষ্য নয়। বরং আওয়ামি লিগের উপর চাপ তৈরি করতেই তারা বিএনপি-কে ব্যবহার করছে। পাশাপাশি ভারতকে চাপে রাখাটাও পরোক্ষ উদ্দেশ্য বেজিংয়ের।

সম্প্রতি বেজিং এবং ঢাকার সম্পর্কে বেশ কিছু মতান্তর তৈরি হয়েছে। চিনের ঋণের ফাঁদ এড়াতে পদ্মা সেতুর কাজে তাদের বিনিয়োগের প্রস্তাব ফিরিয়েছে শেখ হাসিনা সরকার। পাশাপাশি বেশ কিছু ঘরোয়া প্রকল্পেও চিনকে দূরে রাখা হচ্ছে। সম্প্রতি ঢাকা বিমানবন্দরের নতুন তৃতীয় টার্মিনাল তৈরির প্রকল্পটি রূপায়ণে চিন মরিয়া ছিল। বাংলাদেশের এক কর্তার কথায়, ‘‘এ ব্যাপারে জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের কথা অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার পরেও চিন প্রায় ঝাঁপিয়ে পড়েছিল প্রকল্পটি পেতে। তার জন্য সব রকম আর্থিক মূল্য তারা দিতে রাজি ছিল। কিন্তু বিশ্বস্ত সহযোগী দেশ জাপানের সঙ্গে চুক্তিভঙ্গ করার প্রশ্ন ওঠে না বলে চিনকে খালি হাতে ফেরাতে হয়েছে।’’

Advertisement

কূটনৈতিক শিবিরের মতে, চিন যে সাহায্য বিএনপি-কে করেছে তাতে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই-র হাত রয়েছে। আওয়ামি লিগের পক্ষ থেকে বরাবরই বলা হয়েছে— খালেদা জিয়ার পুত্র তারেকের সঙ্গে আইএসআই-এর ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে। গত বছরে চিকিৎসা ও পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর কথা বলে লন্ডনে গিয়ে খালেদা আইএসআই-এর কর্মকর্তাদের সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছেন— এমন অভিযোগও উঠেছিল। আওয়ামি লিগের আরও অভিযোগ, তারেক উপমহাদেশে সক্রিয় মৌলবাদী ও জঙ্গি নেতাদের সঙ্গেও নিবিড় যোগাযোগ রেখে চলছেন।

চিন-পাকিস্তান অক্ষ গড়ে ভোটের আগে বিএনপি-কে শক্তি জোগানোর কৌশল নিয়েছে কি না, সে দিকে নজর রাখছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুন

Advertisement