Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

জিএসটি-তে আসুক তেল, ফের বল রাজ্যের কোর্টে

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৭:০৫
অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এবং তেলমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এবং তেলমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান।
ফাইল চিত্র।

পেট্রল-ডিজেলে বিপুল উৎপাদন শুল্ক নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটে দেশে তেলের চড়া দরের জন্য বিশ্ব বাজারের দর ও রাজ্যগুলির চাপানো যুক্তমূল্য করের (ভ্যাট) দিকেই মূলত আঙুল তুলেছে মোদী সরকার। সেই সঙ্গে পেট্রোপণ্যকে জিএসটি-র আওতায় আনার কথা বলেছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। মঙ্গলবার ফের সেই দাবিই জানালেন তেলমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান। তাঁর আর্জি, এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিক জিএসটি পরিষদ। যদিও সংশ্লিষ্ট মহলের মতে, তেলের দাম কমানো নিয়ে রাজ্যের দিকেই আরও একবার বল ঠেলার চেষ্টা করল কেন্দ্র। কারণ, জিএসটি পরিষদে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায় মূলত সমস্ত রাজ্যের অর্থমন্ত্রীদেরই।

একাংশের দাবি, চড়া দরের তেল নিয়ে মানুষের ক্ষোভ যখন বাড়ছে, তখন এ ভাবে এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চাইল কেন্দ্র। এক, রাজ্যের অর্থমন্ত্রীরা জিএসটি বসানোর সিদ্ধান্ত নিলে কেন্দ্রের দিকে আর এক তরফা কর চাপিয়ে দেওয়ার আঙুল তুলবে না কেউ। দুই, জিএসটি-র আওতায় এলে তেলে ভ্যাট বসিয়ে রাজ্যগুলি যা আয় করে তা-ও উঠে যাবে। সে ক্ষেত্রে মূলত কোপ পড়বে রাজ্যের আয়ে।

এখন দেশে তেলের দরের অর্ধেকেরও বেশি কেন্দ্র ও রাজ্যের কর। জিএসটি-তে এলে তা অনেকটা কমার সম্ভাবনা বলে বহু দিন ধরেই সেই দাবি উঠছে বিভিন্ন মহলে। এ দিন প্রধানও বলেন, ‘‘জিএসটি পরিষদের কাছে নিয়মিত সেই আর্জি জানাই। আজও জানাচ্ছি।’’ উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দেশে তেলের দাম বাড়ায় পশ্চিমবঙ্গ পেট্রল-ডিজেলে যে ১ টাকা করে ভ্যাট কমিয়েছিল, তার পুরো সুবিধা পাননি রাজ্যের ক্রেতারা। বুধবার অবশ্য দাম একই থাকছে।

Advertisement

তেলের দর উদ্বেগজনক সমস্যা তৈরি করছে। দাম কমা ছাড়া কেউ কিছু শুনতে চাইবেন না। এর জন্য জিএসটি পরিষদে আলোচনা হওয়া জরুরি।

- নির্মলা সীতারামন, অর্থমন্ত্রী, ২০/০২/২১


নির্মলার বক্তব্য ছিল, রাজ্য ও ওই পরিষদ সম্মত হলেই পেট্রোপণ্যে জিএসটি চালু হতে পারে। এ জন্য আইন সংশোধনেরও দরকার নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা জিএসটি চালুর দাবিকে কার্যত উস্কে দিতে চাইছেন। যদিও কর থেকে আয় হারানোর আশঙ্কায় অনেক রাজ্যেরই তাতে আপত্তি রয়েছে।


পেট্রোপণ্যকে জিএসটি-তে আনতে দীর্ঘদিন ধরেই জিএসটি পরিষদের কাছে আর্জি জানাচ্ছি। ফের অনুরোধ করলাম। ...বিশ্ব বাজারে অশোধিত তেলের দর বাড়াতেই দেশে খুচরো দাম বাড়ছে।

- ধর্মেন্দ্র প্রধান, তেলমন্ত্রী


তবে পেট্রোপণ্যে শুল্ক ও ভ্যাট যে কেন্দ্র-রাজ্য উভয়েরই অন্যতম ভরসা, এ দিনও ফের তা উল্লেখ করেছেন প্রধান। তিনি অবশ্য করোনাকালে আয় হ্রাস ও সরকারি খরচ বৃদ্ধির যুক্তি দিয়েছেন। যদিও বিরোধীদের ব্যাখ্যা, করোনার আগেও বছর দেড়েক ধরে দেশের অর্থনীতির ঝিমুনিতে সরকারের আয়ে যে টান পড়েছিল এবং সে জন্য তেলে উৎপাদন শুল্ক বাড়িয়েছিল তারা, সে কথা বলছেন না মন্ত্রীরা। উল্টে বল ঠেলছেন রাজ্যের কোর্টে।

আরও পড়ুন

Advertisement