Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৫ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

ডব্লিউটিও চুক্তি রূপায়ণে সময় বাঁধল কেন্দ্র

এই চুক্তি বা ট্রেড ফেসিলিটেশন এগ্রিমেন্ট-এ যে-সব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, সেগুলির মধ্যে রয়েছে: আমদানির নিয়ম সরল করা, দ্রুত পণ্য পরিবহণের

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি ০৭ অগস্ট ২০১৭ ০৯:৫০
Save
Something isn't right! Please refresh.


Popup Close

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা বা ডব্লিউটিও-র শর্ত মেনে অবাধ বাণিজ্যের দরজা আরও বেশি করে খোলার লক্ষ্যে এগোতে পথনির্দেশ স্থির করল কেন্দ্র। ১৬৪টি সদস্য দেশের মধ্যে ইতিমধ্যে সই হওয়া চুক্তি রূপায়ণে এ বার সময়সীমা বেঁধে এগোতে চায় তারা।

এই চুক্তি বা ট্রেড ফেসিলিটেশন এগ্রিমেন্ট-এ যে-সব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, সেগুলির মধ্যে রয়েছে: আমদানির নিয়ম সরল করা, দ্রুত পণ্য পরিবহণের ব্যবস্থা, মাল ওঠানো-নামানোর পদ্ধতি আধুনিক করা।

চুক্তিটি রূপায়ণে গত বছর কেন্দ্র ক্যাবিনেট সচিবের নেতৃত্বে গড়ে এই সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি। এ বার সরকারি উদ্যোগেই তৈরি হয়েছে চুক্তি রূপায়ণের পথনির্দেশ বা ন্যাশনাল ট্রেড ফেসিলিটেশন অ্যাকশন প্ল্যান। এর সময়সীমা ২০১৭-২০২০। তার মধ্যে বেঁধে দেওয়া হয়েছে কোন কোন প্রস্তাব স্বল্প (০-৬ মাস), মাঝারি (৬-১৮ মাস) ও দীর্ঘ মেয়াদে (১৮-৩৬ মাস) রূপায়ণ করতে হবে।

Advertisement

প্রসঙ্গত, ১৯৯৫ সালে তৈরির পর থেকেই ডব্লিউটিও-র প্রধান লক্ষ্য পৃথিবী জুড়ে বাণিজ্য যথাসম্ভব অবাধ করা। কর ও পরিমাণগত বিধিনিষেধ সরল করে ধাপে ধাপে সেই লক্ষ্যে এগোনো। ২০১৪ সালে ডব্লিউটিও সদস্যরা সিলমোহর দেয় ওই ট্রেড ফেসিলিটেশন এগ্রিমেন্ট-এ।

কখন কী

• স্বল্প মেয়াদে লক্ষ্য, দ্রুত নষ্ট হয়ে যায় এমন পণ্য মজুতের ব্যবস্থা উন্নত করা। এ ধরনের আমদানি পণ্যকে ছাড়পত্র দিতে হবে দেশে আসার ১২ ঘণ্টার মধ্যে। রফতানি পণ্যের জন্য তা ৮ ঘণ্টা


• মাঝারি মেয়াদে সব তথ্য ইন্টারনেটে রাখতে হবে। একজানলা ব্যবস্থায় একটি পোর্টাল মারফত তা জানা যাবে


• দীর্ঘ মেয়াদে বাণিজ্যে বাধা ভাঙতে আরও ব্যবস্থা


• নেটে বাণিজ্য সরল করতে নথিপত্র দাখিলে কড়াকড়ি কমানোর প্রস্তাব

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement