আমেরিকার সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধের জেরে আর্থিক বৃদ্ধি কিছুটা হলেও ধাক্কা খেতে পারে চিনের। এই অবস্থায় দেশীয় সংস্থাগুলির পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিল বেজিং। গত সপ্তাহেই এই দু’টি দেশ একে অন্যের ১,৬০০ কোটি ডলারের পণ্যের উপরে নতুন করে আমদানি শুল্ক চাপিয়েছে।  

প্রধানমন্ত্রী লি খ্যছিয়াংয়ের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে চিনের মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, বাণিজ্য যুদ্ধের আঁচ থেকে দেশের অর্থনীতিকে রক্ষা করতে এক গুচ্ছ কৌশল গ্রহণ করা হবে। তারই অঙ্গ হিসেবে বড় অঙ্কের কর ছাড়ের ইঙ্গিত দিয়েছে তারা। বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, কর কমানো হলে দেশীয় সংস্থাগুলির উৎপাদন খরচ কমবে। তখন শুল্ক যুদ্ধে জুঝতেও সুবিধা হবে তাদের। এই খাতে প্রায় ৬৫৯ কোটি ডলার কর ছাড়ের কথা জানিয়েছে বেজিং।

এ দিনই সে দেশের তথা বিশ্বের বৃহত্তম ব্যাঙ্ক আইসিবিসি জুনে শেষ হওয়া ষাণ্মাসিকের ফল ঘোষণা করেছে। মুনাফা বৃদ্ধির পাশাপাশি অনাদায়ি ঋণের পরিস্থিতি ভাল হলেও, অর্থনীতির উপরে বাণিজ্য যুদ্ধের নেতিবাচক ফলাফলের ব্যাপারে সতর্ক করেছে তারা। জানিয়েছে, এই লড়াইয়ের ফলে যে সব সংস্থা ঋণ শোধ করতে পারেনি, তাদের সাময়িক সুবিধা দেওয়া হবে। প্রয়োজনে দেওয়া হবে বাড়তি ধারও।