আমের মান পরীক্ষা-সহ বিভিন্ন নিয়মের কড়াকড়িতে ইউরোপে রফতানি নিয়ে প্রায়ই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যকে। পরিকাঠামোর অভাবে অনেকে বেশি আম রফতানিও করতে পারছে না। এই সমস্যার সমাধানে দ্বিমুখী নীতি নিয়েছে কেন্দ্র। এক, নিয়ম মেনে রফতানি বাড়াতে আম উৎপাদক রাজ্যগুলির সামনে বিশ্বের নতুন বাজার তুলে ধরতে চাইছে কেন্দ্র। সেই সূত্রেই উঠে আসছে কোরিয়া, জাপান-সহ বিভিন্ন দেশের নাম। দুই, কেন্দ্রের কৃষি ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্য রফতানি উন্নয়ন পর্ষদ রাজ্যগুলিকে রফতানির উপযোগী পরিকাঠামো তৈরি করতে বলেছে। অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্নাটকের মতো রাজ্য তাদের পরিকাঠামো সম্প্রসারণ শুরুও করেছে বলে পর্ষদ সূত্রের খবর। 

পরিকল্পনা সফল হলে পশ্চিমবঙ্গ-সহ বিভিন্ন রাজ্যের জন্য আম রফতানির বাজার হতে পারে কোরিয়া, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও চিন। অল্প হলেও গত দু’বছর ধরে চিন ভারতের আম আমদানি শুরু করেছে। সম্প্রতি হিমসাগর, তোতাপুরি নিয়ে যেতে আগ্রহ দেখিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, নিউজিল্যান্ড। 

জাপান, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলিতে কত আম রফতানি হতে পারে, তা নিয়ে কোনও তথ্য পর্ষদের দিল্লির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তারা জানাতে চাননি। তবে চিনে যেমন শুরু হয়েছে, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়াতেও এ দেশের সুস্বাদু আমের বড় বাজার ধরার সুযোগ রয়েছে বলে তাঁদের মত। শিল্প মহল সূত্রের খবর, গত বছর ভারত থেকে শুধু ইউরোপে প্রায় ২,০০০ টন বিভিন্ন প্রজাতির আম রফতানি হয়েছে। আম গিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ থেকেও।