দিন কয়েকের ব্যবধানে শহরে ফের পাওয়া গেল মাদক। গত সোমবার রাতে এক নাইজিরীয়র কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছিল হেরোইন। তার পরে শুক্রবার রাতে বেনিয়াপুকুর থানা এলাকায় লক্ষাধিক টাকার মাদক ট্যাবলেট-সহ ধরা পড়েছে এক মাদক পাচারকারী। ধৃতের নাম মুজিবর রহমান। সে অসমের নগাঁওয়ের বাসিন্দা। তার কাছ থেকে হাজারখানেক মাদক ট্যাবলেট উদ্ধার হয়েছে। ধৃতকে আদালতে তোলা হলে বিচারক ১৪ দিন পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, ‘পার্টি ড্রাগ’ নামে বেশি পরিচিত ওই ট্যাবলেটগুলি আসলে ‘মেথামফেটামাইন’। যার আসল নাম ‘ইয়াবা’। গোয়েন্দারা জানান, ওই ট্যাবলেটগুলিকে আবার ‘ম্যা়ডনেস ড্রাগ’ও বলা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে হিটলারের বাহিনী ওই মাদক ব্যবহার করত বলে সেটি ‘নাৎসি ড্রাগ’ নামেও পরিচিত। এক-একটি ট্যাবলেট একশো টাকায় বিক্রি করা হত। 

তদন্তকারীরা জানান, মুজিবর বৃহস্পতিবার শহরে আসে। কড়েয়া থানা এলাকার চার নম্বর ব্রিজের কাছে একটি হোটেলে ছিল সে। উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে ওই মাদক ট্যাবলেটগুলি সংগ্রহ করেছিল সে। তদন্তকারীদের দাবি, জেরার মুখে মুজিবর জানিয়েছে, কলকাতার বিভিন্ন পার্টিতে ওই মাদক পৌঁছে দেওয়ার কথা ছিল তার। তার আগেই পুলিশ ধরে ফেলে তাকে। মুজিবরের সঙ্গীর নামও জানতে পেরেছেন তদন্তকারীরা।

গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, সোমবার বাজেয়াপ্ত হওয়া মাদকও শহরের বিভিন্ন পার্টিতে পৌঁছনোর কথা ছিল। প্রতিবারই উৎসবের মরসুমে শহরের বিভিন্ন পার্টিতে মাদকের রমরমা বাড়ে। তাই এ বার কলকাতা পুলিশকে নজরদারি বাড়াতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই মতো নজরদারি চালিয়ে এক সপ্তাহে দু’বার শহর থেকে মাদক উদ্ধার করলেন গোয়েন্দারা।