• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

প্রসূতির মৃত্যুতে খুনের অভিযোগ

Kaveri
কাবেরী নস্কর

বছর উনিশের এক প্রসূতির অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে রহস্য দানা বেঁধেছে। রবিবার সকালে হরিদেবপুরের রামচন্দ্রপুরে শ্বশুরবাড়ি থেকে কাবেরী নস্কর নামে ওই তরুণীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। এম আর বাঙুর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। যদিও কাবেরীর মা-বাবার অভিযোগ, পণের দাবিতে তাঁদের মেয়েকে খুন করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে তরুণীর স্বামী প্রভাস নস্করকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, এক বছর আগে প্রভাসের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল কাবেরীর। কৃষিকাজের পাশাপাশি মাছ চাষও করেন প্রভাস। কাবেরী ছিলেন তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা। তাঁর এক জামাইবাবু সঞ্জু মণ্ডল জানান, রবিবার বেলায় তাঁর স্ত্রীকে ফোন করে প্রভাস বলেন, কাবেরীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। খবর পেয়েই তরুণীর দিদি কাবেরীর মা-বাবাকে ফোন করে জানতে চান, তিনি তাঁদের কাছে গিয়েছেন কি না। সঞ্জু জানান, এর কিছু ক্ষণ পরেই ফের শ্বশুরবাড়ি থেকে ফোন করে বলা হয়, কাবেরী আত্মহত্যা করেছেন।

তরুণীর মা-বাবার দাবি, তাঁরা মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে এসে দেখেন, বিছানায় শোয়ানো রয়েছে তাঁর দেহ। কালো হয়ে গিয়েছে গোটা মুখ। এর পরেই তাঁরা শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে কাবেরীকে খুনের অভিযোগ দায়ের করেন। আরও অভিযোগ, পুলিশ অভিযোগ নিয়ে চায়নি। পরে স্থানীয় নেতার ফোন পেয়ে অভিযোগ নেয়।

পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছে, তরুণীর মা-বাবার থেকে অভিযোগ পাওয়ার পরপরই তাঁর স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ময়না-তদন্তের রিপোর্ট এলে মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট হবে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন